রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

শনিবার ০৬ মার্চ ২০২১, ২২শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৬:৫৪ পূর্বাহ্ণ

ভূঞাপুরে জমে উঠেছে পুরাতন কাপড় বিক্রির ধুম

প্রকাশিত : ০৩:২৭ PM, ১৯ জানুয়ারী ২০২১ মঙ্গলবার ৯১ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

কোরবান আলী তালুকদার, ভূঞাপুর (টাঙ্গাইল) প্রতিনিধি: টাঙ্গাইলের ভূঞাপুরে আবহাওয়া পরিবর্তন হওয়ার সাথে সাথেই জেঁকে বসেছে শীত। এই শীতের কারণে পৌর বাজারসহ উপজেলার বিভিন্ন হাটবাজার গুলোতে দেখা যাচ্ছে শীতের পুরাতন কাপড় বিক্রির ধুম। বেলা বাড়ার সাথে সাথেই নিম্ন আয়ের মানুষেরা ভিড় করছেন ফুটপাতের দোকান গুলোতে। পাশাপাশি বিপনী বিতান গুলোতেও দেখা গেছে শীতের কাপড় ক্রয় করতে। তবে গত বছরের তুলনায় এবার দাম একটু বেশি। ২’শ থেকে ৩’শ টাকায় বিক্রি হচ্ছে এসব গরম কাপড়। শীত বাড়লে দাম আরও বাড়বে বলে জানায় ব্যবসায়ীরা।

উপজেলার বিভিন্ন বাজারের কাপড়ের দোকান গুলোতে আলাপ করে জানা গেছে, এবার শীতের শুরুতেই শীতের কাপড়ের চাহিদা কম ছিল। গত কয়েকদিন যাবত হঠাৎ শৈত্যপ্রবাহের কারণে শীতের কাপড়ের চাহিদা কিছুটা বেড়েছে। কিন্তু ঘন শৈত্যপ্রবাহের কারণে কর্মজীবী মানুষেরা হাটবাজারে আসলেও প্রয়োজন ছাড়া কেউ ঘর থেকে বের হচ্ছে না।

উপজেলার গোবিন্দাসী হাটে ফুটপাতের দোকান গুলোতে ঘুরে দেখা যায়, বেলা বাড়ার সাথে সাথেই ফুটপাতের দোকান গুলোতে জমে উঠে পুরাতন কাপড় বিক্রির ধুম। ফুটপাতের এসব দোকানের বেশির ভাগ ক্রেতাই দরিদ্র। তাদের অধিকাংশই দিন আনে দিন খায়। যেদিন তারা কাজ করতে পারে না সেদিন অনেকের ঘরেই চুলা জ্বলে না। তবে অনেক সময় উচ্চবিত্ত ক্রেতাদেরও দেখা যায় এসব ফুটপাতের দোকানে।

পুরাতন কাপড় ক্রয় করতে আসা অটো ভ্যান চালক জানান, আমি নিম্ন আয়ের মানুষ‌। ফুটপাতে বসা কয়েকটি কাপড়ের দোকান ঘুরে আমার জন্য ১৮০ টাকা দিয়ে একটি শীতের কাপড় ক্রয় করেছি এবং আমার দুই সন্তানের জন্য দুইটি শীতের কাপড় ক্রয় করেছি। এবছর এসব শীতের কাপড় দিয়ে শীত নিবারণ হয়ে যাবে।

পুরাতন কাপড় বিক্রেতা আব্দুল হামিদ ও আব্দুস সালাম জানান, আমরা শীতের সময় এলেই শীতের কাপড় ক্রয় করে এনে ফুটপাতে বিক্রি করি। কাপড়ের দাম নাগালের মধ্যে থাকায় নিম্ন আয়ের মানুষ এসব দোকানে ভিড় জমায়। ছোট বড় সব বয়সী মানুষের গরম কাপড় পাওয়া যায় এখানে। এসব শীতের কাপড় বিক্রি করে নিয়মিত ৪শ’ থেকে ৫শ’ টাকা আয় হয়। আর তা দিয়েই আমাদের সংসারের খরচ চলে যায়।

ভূঞাপুরে পুরাতন কাপড় বিক্রেতা কেরামত আলী জানান, প্রতিবছরই এই সময়ে শীতের কাপড় বিক্রি করেন তিনি। সকাল ৮টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত চলে বেচাকেনা। সাধারণত যারা নামীদামি মার্কেট থেকে গরম কাপড় কিনতে পারেনা তারাই ভিড় জমায় এই সব দোকানে। তবে গত বছরের তুলনায় এই বছর পুরাতন কাপড়ের দাম বেড়েছে অনেক। আমরা যেসব কাপড় কিনে আনি অনেক সময় কাপড় নষ্ট থাকে। এসব কারণেও পুরাতন কাপড়ের দাম একটু বেশি।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT