রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

বুধবার ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৯:৩৫ পূর্বাহ্ণ

বিক্রমের দেখা পায়নি নাসা

প্রকাশিত : ০৪:৫৮ AM, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ Saturday ১২৩ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

চাঁদের দক্ষিণ মেরুর যে উঁচু সমভূমিতে নামার কথা ছিল ভারতের ‘চাঁদের গাড়ি’ বিক্রম, সেই অঞ্চলের ছবি তুলে প্রকাশ করেছে নাসা; কিন্তু মার্কিন জাতীয় মহাকাশ গবেষণা সংস্থার এলআরও নভোযানের উচ্চমানের ছবিতেও ধরা পড়েনি অবতরকযান বিক্রমের চিহ্ন। নাসা গতকাল এক বিবৃতিতে বলেছে, বিক্রম ‘সজোরে আছড়ে’ পড়েছে চন্দ্রপৃষ্ঠে।

যোগাযোগবিচ্ছিন্ন ও ‘আপাত নিখোঁজ’ মানেই কি বিধ্বস্ত হওয়াÑ প্রশ্ন রেখেছিলাম নাসার সংশ্লিষ্ট অভিযানের দুই বিজ্ঞানীকে; কিন্তু গতরাত পর্যন্ত নাসা থেকে উত্তর পাওয়া যায়নি। বিক্রম স্বাভাবিক অবতরণ করতে পারলে ভারত হতো পৃথিবীর চতুর্থ দেশ, যারা চাঁদের মাটিতে নভোযান নামাতে সফল হয়েছে। এর আগে সোভিয়েত ইউনিয়ন (রাশিয়া), যুক্তরাষ্ট্র ও চীন এমন সক্ষমতা প্রমাণ করেছে। এ বছর শুরুর দিকে ইসরায়েলের একটি বেসরকারি উদ্যোগও চাঁদে অবতরণের শেষ মুহূর্তে ব্যর্থ হয়ে যায়।

৭ সেপ্টেম্বর চাঁদের দক্ষিণ মেরুর দুই গিরিখাতের মধ্যবর্তী উঁচু সমতল ভূমিতে অবতরণ করছিল বিক্রম, যার পেটের মধ্যে ছিল প্রজ্ঞা নামের একটি রোবট। ভারতের জাতীয় মহাকাশ সংস্থা ইসরোর পরিকল্পনামাফিক এই রোবট চাঁদে দুই সপ্তাহের অনুসন্ধান চালাতÑ চাঁদের ভূমকম্পনও হয়তো সে মেপে আমাদের জানাত।

চাঁদের মাটি ছোঁয়ার মাত্র দুই কিলোমিটার ১০০ মিটার ওপরে থাকতে পৃথিবীর নিয়ন্ত্রণ কক্ষের সঙ্গে যোগাযোগ হারিয়ে ফেলে বিক্রম। তখন ভারতের বেঙ্গালুরুতে ইসরোর নিয়ন্ত্রণকক্ষে নেমে আসে ‘হতাশার শীত’। দুর্ঘটনার ১৪ দিন পর, ২১ সেপ্টেম্বরÑ যেই দিন আক্ষরিক অর্থেই বিক্রম ও প্রজ্ঞার নির্ধারিত আয়ু ফুরোনোর দিন, সেদিন চাঁদের দক্ষিণ মেরুও অন্ধকারে ডুবে যায়। এখন সেখানে ‘হিমশীতল পরিস্থিতি’, তাপমাত্রা শূন্যের নিচে ২০০ ডিগ্রি সেলসিয়াসে নেমে যেতে পারে। এমন পরিস্থিতিতে খাপ খাওয়ানোর কোনো ক্ষমতাই নেই প্রজ্ঞার।

১৭ সেপ্টেম্বর ওই অঞ্চলের ওপর দিয়ে উড়ে যাচ্ছিল নাসার নভোযান লুনার রিকনিসনস অরবিটার (এলআরও)। সেই যানের ক্যামেরা (এলআরওসি) দিয়ে ছবি তোলানো হয়। সেই ছবি প্রকাশ করে ‘চাঁদের উঁচু সমভূমিতে লাপাত্তা?’ এই শিরোনামে এক বিবৃতিতে নাসা গতকাল জানিয়েছে, সেদিন উড়ে যাওয়ার সময় ওই অঞ্চলের উচ্চ রেজুলেশনের বেশ কিছু ছবি তুলেছে এলআরও। এখন পর্যন্ত এলআরওসি দল অবতরকযানের অবস্থান শনাক্ত করতে পারেনি বা এর ছবিও তুলতে পারেনি। ওই অঞ্চল এখন যেহেতু আলোহীন দশা পার করছে, ফলে বেশিরভাগ জায়গা ছায়াচ্ছন্ন। এমন হতে পারে যে, অবতরক বিক্রম কোনো ছায়ায় লুকিয়ে আছে।’

বিবৃতিতে নাসা আরও বলেছে, ‘[১৪] অক্টোবরে এলআরও যখন আবার ওই অঞ্চলের ওপর দিয়ে উড়ে যাবে, তখন আলো অনুকূলে থাকবে। তখন অবতরক যানটিকে শনাক্ত ও তার ছবি তোলার আরেকবার চেষ্টা করা হবে।’

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT