রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

শনিবার ২২ জানুয়ারি ২০২২, ৯ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

০২:৩৭ অপরাহ্ণ

শিরোনাম
◈ আ’লীগ নেতা সৈয়দ মাসুদুল হক টুকুর পিতার ২১ তম মৃত্যুবার্ষিকী আজ ◈ ঘাটাইল আশ্রয়ন প্রকল্প পরিদর্শনে প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের পরিচালক ◈ শীতার্তদের মুখে হাসি ফোটালেন সিদ্ধিরগঞ্জ মানব কল্যাণ সংস্থা ◈ হরিরামপুরে স্বামীর দ্বিতীয় বিয়ে বন্ধে স্ত্রীর অনশন ◈ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা গরীব-দুঃখীদের পাশে রয়েছেন সাবেক সিনিয়র সচিব সাজ্জাদুল হাসান… ◈ কালিগঞ্জের কৃষ্ণনগর করোনা এক্সপার্ট টিমের কম্বল বিতরণ ◈ পেইড পিয়ার ভলান্টিয়ারদের চাকরী স্থায়ীকরণের দাবিতে মানববন্ধন ◈ ফুলবাড়ীতে শীতার্তাদের মাঝে ডিয়ার এক্স টিমের শীতবস্ত্র বিতরণ ◈ রানীরবন্দর রুপালী ব্যাংক লিঃ ব্যবস্থাপকের বিদায় ও বরণ ◈ শার্শায় বাইক ছিনতাই করে চালককে হত্যায় জড়িত ৩ আসামী আটক

বাণিজ্য মেলায় ছড়িয়ে দিতে জাল নোট তৈরি করছিল ছগীর: র‍্যাব

প্রকাশিত : ০২:৫৬ PM, ৪ জানুয়ারী ২০২২ মঙ্গলবার ২৯ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

রাজধানীর পল্লবী এলাকা থেকে এক কোটি ২০ লাখ টাকার জাল নোটসহ সগীর হোসেন (৪৭) ও তাঁর দুই সহযোগীকে গ্রেপ্তার করেছে র‍্যাব। গতকাল সোমবার তাঁদের গ্রেপ্তার করা হয়।

আজ মঙ্গলবার কারওয়ান বাজার র‍্যাব মিডিয়া সেন্টারে এক সংবাদ সম্মেলনে এমনটাই জানিয়েছেন আইন ও গণমাধ্যম শাখার পরিচালক কমান্ডার খন্দকার আল মঈন।

কমান্ডার খন্দকার আল মঈন বলেন, ছগির দৈনিক এক লাখ টাকা সমমূল্যের জাল নোট তৈরি করতে পারত। বাণিজ্য মেলাকে কেন্দ্র করে সে গত তিন থেকে চার মাস ধরে জাল নোট তৈরি করে মজুত করে আসছিলেন। চক্রের মূল হোতা ছগীর জাল টাকা তৈরির বিষয়ে কাউকে কিছুই বলত না, সে নিজেই সব কাজ করত। এ ছাড়া পুরান ঢাকা থেকে জাল টাকা তৈরির সরঞ্জাম নিজেই সংগ্রহ করত।

গ্রেপ্তার সহযোগী সেলিনা আক্তার পাখি (২০) ও রুহুল আমিন (৩৩) সহ ৮ থেকে ১০ জন সদস্য রাজধানীসহ বিভিন্ন জেলায় বিক্রিয় প্রতিনিধি হিসেবে কাজ করতেন। এ ছাড়া এই চক্রের সদস্যরা নিজেদের দৈনন্দিন কাজ করত জাল টাকা দিয়ে। এ অবস্থায় কয়েকজন ধরা পড়লেও পরে টাকা দিয়া ছেড়ে আসে।

আল মঈন বলেন, গ্রেপ্তার রুহুল আমিন চক্রের মূল হোতা ছগিরের অন্যতম সহযোগী হিসেবে কাজ করে। রুহুল আমিনের মাধ্যমে ছগিরের অন্যান্য সহযোগীদের সঙ্গে পরিচয় হয়। এ ছাড়া ছগীর ও বিক্রয় প্রতিনিধির মধ্যে যোগাযোগ রক্ষা করতেন তিনি। জাল নোট তৈরি ও বিক্রয়ের মামলায় ২০১৭ সালে জেলে ছিল এবং বর্তমানে তাঁর নামে মামলা চলমান রয়েছে।

র‍্যাবের মুখপাত্র বলেন, তারা পরস্পর যোগসাজশে দীর্ঘদিন যাবৎ ঢাকা ও বরিশালসহ বিভিন্ন এলাকায় এই জাল নোট তৈরি করে বিভিন্ন লোকদের কাছে স্বল্প মূল্যে জাল নোট বিক্রি করে আসছে। এ চক্রটির মূল হোতা ছগীর হোসেন ও অন্যান্যরা তার সহযোগী। তারা জানায়, এই চক্রে ১৫-২০ জন সদস্য রয়েছে।

জব্দকৃত জাল নোটজব্দকৃত জাল নোট। ছবি: আলী হোসেন মিন্টু
মঈন বলেন, গত বছর ২৮ নভেম্বর র‍্যাব-৪ এর মিরপুর মডেল থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে ২৮ লাখ ৫৩ হাজার টাকা মূল্য মানের জাল নোটসহ জাল নোট তৈরি ও বিক্রয়কারী চক্রের সক্রিয় চারজনকে গ্রেপ্তার করে। তাদের কাছ থেকেই চক্রটির মূল হোতা ও অন্যান্য সহযোগীদের সম্পর্কে জানাতে পারে র‍্যাব। তাদের তথ্যেই এই ছগীরকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।

তাদের কাছ থেকে ৫টি মোবাইল,২টি ল্যাপটপ, একটি সিপিইউ, একটি মনিটর, ৩টি প্রিন্টার, একটি হ্যান্ড এয়ার ড্রয়ারসহ জাল নোট তৈরির বিপুল পরিমাণ সরঞ্জামাদি জব্দ করা হয়।

জাল নোট তৈরির পরে ছগীর তাঁর সহযোগীদের জাল নোট নিয়ে যেতে বলত। প্রতি এক লাখ জাল নোট চার হাজার টাকা থেকে শুরু করে, চাহিদা ওপর নির্ভর করে ১০-১৫ হাজার টাকার বিনিময়ে বিক্রি করত। আর এর উপরে যা বিক্রি করত তা তাদের লাভ থাকত। এ ছাড়া টার্গেট অনুযায়ী ছগীর প্রতি মাসে তাঁর সহযোগীদেরকে বোনাসও দিত।

গ্রেপ্তার সেলিনা আক্তার পাখির স্বামীও জাল নোট তৈরি চক্রের একজন সক্রিয় সদস্য এবং বর্তমানে সে জেলে আছে। সেলিনা ঢাকা জেলার কামরাঙ্গীর চরে একটি বিউটি পার্লারে বিউটিশিয়ান হিসেবে কাজ করত। পরে স্বামীর মাধ্যমে এ চক্রের মূল হোতা ছগীরের সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয়। এখন পাখি নিজেও এ চক্রে জড়িয়ে জাল নোট ব্যবসা শুরু করেন।

র‍্যাব জানায় ছগীর হোসেন ১৯৮৭ সালে বরগুনা থেকে ঢাকায় এসে প্রথমে একটি হোটেল বয়ের কাজ নেয়। পরবর্তীকে ভ্যানে ফেরি করে গার্মেন্টস পণ্য বিক্রয় করত। গার্মেন্টস পণ্য বিক্রয়ের সময় আসামি ছগীরের সঙ্গে ইদ্রিস নামক একজনের পরিচয় হয়। পরিচয়ের সুবাদে তাদের মধ্যে সু-সম্পর্ক গড়ে ওঠে। ইদ্রিসের মাধ্যমে তাঁর জাল নোট তৈরির হাতেখড়ি হয়। প্রথমে সে জাল নোট বিক্রি ও পরবর্তীতে জাল নোট তৈরির বিষয় রপ্ত করে। ২০১৭ সালে জাল নোটসহ ইদ্রিস ও ছগীর আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর হাতে গ্রেপ্তার হয়। এক বছর জেল খেটে পুনরায় সে ২০১৮ সাল হতে জাল নোট তৈরি শুরু করে। তৈরিকৃত জাল নোটগুলো তাঁর চক্রে থাকা অন্যান্য সহযোগী গ্রেপ্তার রুহুল আমিন, সেলিনা ও অন্যান্য ৭/৮ জনের মাধ্যমে বিক্রি করে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT