রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১, ২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৯:০৮ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম
◈ করোনার দ্বিতীয় টিকা নিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান – মোফাজ্জল হোসেন খান ◈ কাভার্ডভ‌্যান চাপায় না.গ‌ঞ্জ সিআইডির কন‌স্টেবল নিহত ◈ নারায়ণগঞ্জে ভ্রাম্যমাণ গাড়িতে মিলছে দুধ ডিম মাংস ◈ ধামইরহাটে নর্থওয়েষ্ট ক্যাবল নেটওয়ার্কে তালা, ভোগান্তিতে স্যাটেলাইট গ্রাহকরা ◈ ধামইরহাটে ২য় ধাপের করোনা মোকাবিলায় তৎপর প্রশাসন করোনায় আক্রান্ত স্বাস্থ্য প্রশাসক ও মুক্তিযোদ্ধা আইসোলেশনে ◈ দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিলেন  গৌরীপুরের গণমাধ্যমকর্মীরা ◈ ইউএনও’র মোবাইল নাম্বার ক্লোন করে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে টাকা দাবি ! ◈ রাজারহাট উপজেলা ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স এর শুভ উদ্বোধন ◈ শ্রীনগরে বাড়ৈগাঁও-পশ্চিম নওপাড়া সড়কটি এখন মৃত্যুকুপ! ◈ তিতাসে গোমতী নদীর পাড় ও ডিম চরের মাটি যাচ্ছে ইট ভাটায়

বাংলাদেশ-মিজোরামের বাণিজ্য বাড়াতে সাজেকে বর্ডার হাট

প্রকাশিত : ০৩:৩৭ PM, ২১ মার্চ ২০২১ রবিবার ৮০ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

বাংলাদেশ ও মিজোরামের বাণিজ্য সম্প্রসারণে বর্ডার হাট স্থাপনে উভয় দেশ সম্মত হয়েছে বলে জানিয়েছেন বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি। একই সঙ্গে কানেক্টিভিটি বাড়াতে মিজোরাম সাজেকের সড়ক পথ ও রাঙামাটিতে নৌ-পথের ব্যবহার বাড়াতে আগ্রহী বলে জানান তিনি।

রোববার (২১ মার্চ) দুপুরে সচিবালয়ে বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের সম্মেলন কক্ষে সফররত ভারতের মিজোরাম রাজ্যের স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও বাণিজ্য বিষয়কমন্ত্রী সঙ্গে বৈঠক শেষে এক সংবাদ সম্মেলনে তিনি এসব কথা জানান।

সংবাদ সম্মেলনে বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন জানান, ভারতের সঙ্গে বেশ কয়েকটি বর্ডার হাট চালু আছে। এবার ভারতের প্রধানমন্ত্রীর সফরে আরো তিনটি বর্ডার হাট উদ্বোধন করার সিদ্ধান্ত রয়েছে। সাজেক থেকে মিজোরামের বর্ডারে মাত্র ৩০ মিনিটে যাওয়া যায় এবং রাস্তাও ভালো। সেখানে বর্ডার হাট করার বিষয়টিকে তারা গুরুত্ব দিচ্ছে। তাদের সঙ্গে আমাদের ৩১৮ কিলোমিটারের যে বর্ডার কানেকশন রয়েছে সেক্ষেত্রে তাদের ব্যবসায়িক সম্পর্ক যাতে উন্নত হয়, যাতে বাণিজ্যিক সুবিধা পায় সে প্রস্তাব দিয়েছে। প্রধানমন্ত্রী চান যাদের সঙ্গে সীমানা রয়েছে তাদের সঙ্গে বাণিজ্যিক সম্পর্ক বাড়াতে। তারা আমাদের কয়েকটি ফ্যাক্টরি ভিজিট করেছেন। খুব শিগগিরই আমরা বর্ডারে যেতে চেষ্টা করবো, আগামী মাসের শেষে মিজোরামে গিয়ে দেখে আসার চেষ্টা করবো।

তিনি বলেন, মিজোরাম একটি ব্রিজের কথা বলছে, সেটা করলে সরাসরি যোগাযোগ স্থাপন সম্ভব হবে। তারা কয়েকটি জায়গা দেখিয়েছে রাঙামাটির কথা বলেছে, সেখানে গভীর নদী আছে, কিন্তু ভালো পথ নেই। সাজেকের যে বর্ডারের কথা বলেছে সেখানে ছোট খাল আছে, সেখানে একটি ব্রিজ করলে চিটাগাং পোর্ট তারা ব্যবহার করতে পারবে, এটা তাদের স্বপ্ন। প্রধানমন্ত্রীও চায় ভারতের সঙ্গে আমাদের সম্পর্ক ভালো থাকুক। সাজেকের সঙ্গে আমাদের যোগাযোগটা ভালো, সেখানে করা যায় কিনা সেটা দেখতে আমি যাবো। আমরা সম্পর্কটা মিজোরামের সঙ্গে চূড়ান্তভাবে বাড়াতে চাই।

মিজোরাম নিজস্বভাবেই বাণিজ্যিক সিদ্ধান্ত নিতে পারে জানিয়ে বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন,
মিজোরাম থেকে বাঁশ, সেগুন কাঠ, চিঠি, ফল, সিমেন্ট, পাথর আসে। আমাদের থেকে ট্রয়লেট্রিকস, গার্মেন্টস, ফলের রস, মাংস, মাছ, ইলেক্ট্রনিকস, কুকিং অয়েল যাচ্ছে। বর্ডারের কানেকশন বাড়াতে পারলে বাণিজ্য আরো সম্প্রসারিত হবে।

মিজোরামের সঙ্গে কি বাংলাদেশের সড়ক, রেল বা নদীপথে যোগাযোগ স্থাপনে কোনো বন্দর করা হবে কি না জানতে চাইলে টিপু মুনশি বলেন, সাজেকের পথ দিয়ে রোড কানেকটিভিটি হতে পারে। অথবা নদীপথে ১৮ থেকে ১৯ কিলোমিটার আসলে রাঙামাটি আসতে পারবে। তাহলে নদীপথ বা সড়ক পথে সেটি হতে পারে। তবে রেল পথের সম্ভাবনা এ মুহুর্তে নেই। নদী পথ রয়েছে এ পথে সরাসরি সিল্কসিটি এলাকায় পৌঁছানো যাবে। এখন সড়ক বা নদী পথ কোনো কিছু নেই বলে চোরাইপথে কিছু কাঠ আসে। মে মাসে ঘুরে এসে আমরা ব্যবসার বিষয়টি করতে চাই।

মিজোরামের বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, আমরা আজকে বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রীর সঙ্গে বৈঠক করলাম। শনিবার (২০ মার্চ) আমরা কয়েকটি ফ্যাক্টরি ভিজিট করেছি। প্লাস্টিক ইন্ডাস্ট্রি ভিজিট করেছি, যা খুবই দারুন। আমরা চাই মিজোরামে কিছু ফ্যাক্টরি করতে। গার্মেন্টস প্রোডাক্ট দিয়ে বাংলাদেশ সারা বিশ্বে প্রসংশিত। তাদের আয়ের একটি বড় অংশ আসছে এখান থেকে। গার্মেন্টসের মাধ্যমে নারীদের কর্মক্ষেত্র তৈরিতে বিশাল জায়গা তৈরি করেছে বাংলাদেশ।

তিনি বলেন, মিজোরাম ভারতের মধ্যে অত্যন্ত শান্তিপূর্ণ রাজ্য। শিক্ষায় কেরালার পর মিজোরাম এগিয়ে রয়েছে, আমরা দ্বিতীয় অবস্থানে রয়েছি। করোনা পরিস্তিতিতে বিশ্বজুড়ে যে সমস্যা তৈরি হয়েছে, তাতে সবাই ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছি। করোনায় আমাদের মাত্র ১১ জন মারা গেছেন, আমরা করোনা প্রতিরোধে সফলতা দেখিয়েছি। বাংলাদেশের বাণিজ্যমন্ত্রী বলেছেন- সাজেক থেকে কাছাকাছি যে বর্ডার রয়েছে সেখানে বর্ডার হাট করার বিষয়ে দেখতে আগামী মাসে তিনি মিজোরামে আসবেন। আমাদের সঙ্গে বাংলাদেশের ৩১৮ কিলোমিটার বর্ডার সীমানা রয়েছে। বাংলাদেশ আমাদের খুবই কাছের। আমরা বাংলাদেশের সঙ্গে বাণিজ্য প্রসারে খুবই আগ্রহী।

মিজোরামের সঙ্গে বাণিজ্যের ক্ষেত্রে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে ট্যারিফ নন ট্যারিফ বেরিয়ার নিয়ে কোনো সমস্যা হবে কি না জানতে চাইলে মিজোরামের বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, মিজোরামের বাণিজ্যিক ক্ষেত্রে সিদ্ধান্ত নেওয়ার সরাসরি ক্ষমতা রয়েছে। আমরা কিছু চুক্তি করেছি, যেগুলো ইতোমধ্যে মিয়ানমারের সঙ্গে আছে। সুতরাং নতুন করে সেগুলো করলে ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের সঙ্গে সমস্যা হওয়ার কথা না। আমরা মিয়ানমারের সঙ্গে ইতোমধ্যে ব্যবসা করছি।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT