রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

মঙ্গলবার ০১ ডিসেম্বর ২০২০, ১৭ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

১২:০৩ অপরাহ্ণ

শিরোনাম
◈ ভিবিডি গোপালগঞ্জ জেলা কর্তৃক আয়োজিত “আনন্দ আহার” ◈ সম্প্রীতির হবিগঞ্জ সংগঠনের জেলা শাখার সিনিয়র সদস্য নির্বাচিত হলেন শুভ আহমেদ ◈ কবিতা : শীতের পিঠা – মোঃ শহিদুল ইসলাম ◈ ধামইরহাটে জঙ্গিবাদ মৌলবাদ ও সাম্প্রদায়িকতার বিরুদ্ধে যুবলীগের বিক্ষোভ সমাবেশ ◈ ধামইরহাটে দার্জিলিং জাতের কমলার চারা রোপন ◈ ধামইরহাটে মাস্ক না পরায় বিভিন্ন শ্রেনি পেশার মানুষের জরিমানা, সচেতন করতে রাস্তায় নামলেন এসিল্যান্ড ◈ সকল ক্ষেত্রে প্রতিবন্ধীদের প্রবেশগম্যতা নিশ্চিত করার আহ্বান ◈ ধামইরহাটে অজ্ঞাত রোগে মাছে মড়ক, ৩০ লাখ টাকার ক্ষতিতে মৎস্যচাষী’র হাহাকার ◈ প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার আমলেই জনকল্যানমূলক কাজ সবচেয়ে বেশি হয়েছে- এমপি শাওন ◈ উদয়কাঠী ইউনিয়ন পরিষদের স্মার্ট কার্ড বিতরনের উদ্বোধন করেন চেয়ারম্যান ননি

বাঁশের সাঁকোয় চলাচল

প্রকাশিত : ০৭:১৯ AM, ৪ অক্টোবর ২০১৯ Friday ২৪১ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

বগুড়ার নন্দীগ্রাম উপজেলার ভাটরা ইউনিয়নের দুর্জয়পুর গ্রামের ভুবনধোয়া খাল ও নাগরকান্দি গ্রামের কোপাইগঙ্গা খাল পারাপারের একমাত্র ভরসা বাঁশের সাঁকো। জীবনের ঝুঁকি নিয়ে শত শত সাধারণ মানুষ, শিক্ষার্থী, কৃষক এই সাঁকো দিয়ে খাল পার হচ্ছেন।

ভুক্তভোগী এলাকাবাসী জানান, নাগরকান্দি গ্রামের কোপাইগঙ্গা খালে এবং দুর্জয়পুর গ্রামের ভুবনধোয়া খালের ওপর অনেক আগে থেকেই এলাকাবাসী বাঁশের সাঁকোটি নিজ উদ্যোগে নির্মাণ করে। প্রতিদিনই শত শত মানুষের পারাপার সাঁকো দিয়ে। এপারে কৃষকদের ওপারে জমি চাষ, ফসল আনা-নেয়া করতে ব্যাপক সমস্যা হয়। বর্ষাকালে পানি প্রবাহ বৃদ্ধি পেলে ভোগান্তি দ্বিগুণ হয়। দীর্ঘদিন ধরে এলাকাবাসী ব্রিজ নির্মাণের দাবি জানিয়ে আসছেন। দাবি পূরণ না হওয়ায় স্কুলশিক্ষার্থীসহ কৃষকদের ঝুঁকি নিয়ে বাঁশের সাঁকো দিয়ে যাতায়াত করতে হচ্ছে। এই বাঁশের সাঁকোই চলাচলের একমাত্র ভরসা।

দুর্জয়পুর গ্রামের কৃষক মফিজার রহমান বলেন, ঘনবসতিপূর্ণ দুর্জয়পুর গ্রামের কৃষকদের অধিকাংশ ফসলি জমি খালের ওপারে। প্রতিবছর বোরো মৌসুম, রবিশস্যসহ সকল ধরনের ফসল আনা-নেয়া নিয়ে পুরো গ্রামের মানুষকেই ভোগান্তিতে পড়তে হয় একটি ব্রিজের অভাবে। সংশ্লিষ্টদের বারবার বলেও কোনো লাভ হয়নি। সবাই শুধু আশ্বাস দেয় কেউ কাজ করে না। দুর্জয়পুর বেসরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষিকা শাপলা আকতার বলেন, খালের ওপারে কালিপাড়া গ্রামের অনেক শিক্ষার্থী এই স্কুলে লেখাপড়া করে। এখানে ব্রিজ না হওয়ায় চরম দুর্ভোগের শিকার হতে হয় শিক্ষার্থীদের। বৃষ্টির দিনে বাঁশের সাঁকো ভিজে পিচ্ছিল হয়ে পড়ে। এতে আহত হওয়ার ঘটনাও ঘটেছে। খুদে শিক্ষার্থীদের জন্য যেন এটা একটা মরণফাঁদ। নাগরকান্দি গ্রামের নারায়ণ চন্দ্র প্রামাণিক বলেন, এ পাড়ের কৃষকদের ওপাড়ে জমির ফসল আনা-নেয়া করতে বড়ই বিপাকে পড়তে হয়। এতে মানুষের সময় যেমন নষ্ট হয়, তেমনি চরম দুর্ভোগ পোহাতে হয়। উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিসার আবু তাহের জানান, ওই দুটি স্থানে ব্রিজ নির্মাণের জন্য দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা ও ত্রাণ মন্ত্রণালয়ে প্রস্তাব পাঠানো হয়েছে। এরপরে ওই মন্ত্রণালয় থেকে যাচাই-বাছাই করবে। পরবর্তীতে টেন্ডারের মাধ্যমে কাজ শুরু করা হবে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT