রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

বুধবার ০৩ মার্চ ২০২১, ১৯শে ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৮:৩৪ অপরাহ্ণ

শিরোনাম
◈ কোটচাঁদপুর মেইন বাসস্ট্যান্ডে পরিত্যাক্ত অবস্থায় পাবলিক টয়লেট, জনদূর্ভোগ চরমে ◈ বান্দরবানে সারাদেশে সাংবাদিকদের উপর নির্যাতন ও নিপিড়ন বন্ধের দাবিতে মানববন্ধন ◈ বিধবার মাথা গুজবার ঠাই হারিয়ে খোলা আকাশের নিজ বসবাস ◈ ভেদরগঞ্জে দক্ষিন তারাবুনিয়ায় নিষেধাজ্ঞাকে বৃদ্ধাঙ্গুলি দেখিয়ে চলছে ফসলি জমিতে পুকুর খনন ◈ হযরত হাফিয সমীউদ্দীন শাহ্ দাখিল মাদ্রাসা হিফযখানা ও এতিমখানার বার্ষিক সালানা জলসা অনুষ্ঠিত ◈ শিক্ষাখাতে অনিয়ম: প্রতিবাদে অধ্যক্ষ আজম খাঁনের বিরুদ্ধে বিক্ষোভ মিছিল! ◈ হরিরামপুরে সনাতন ধর্মাবলম্বীদের অনুষ্ঠানে বাধা ও পিটিয়ে ১ জনকে গুরতর জখম ◈ নীলফামারীতে সবুজে ঘেরা প্রকৃতির মাঝে শোভা পাচ্ছে হলুদ রঙের সূর্যমুখী ◈ ধামইরহাটে ঐতিহাসিক ৭ মার্চ, বঙ্গবন্ধুর জন্মশতবাষিকী ও স্বাধীনতা দিবস উদযাপনে প্রস্তুতিমুলক সভা ◈ ধামইরহাটে রাতের বেলায় বাড়ীতে হামলা-ভাংচুর ও চুরির মামলায় আটক-৩

প্রকাশিত সংবাদে ভূমি দস্যু অপবাদে শ্রীনগরে সংবাদ সম্মেলন

প্রকাশিত : ০৬:৪৫ PM, ২৯ সেপ্টেম্বর ২০১৯ রবিবার ৩৫৪ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

প্রকাশিত সংবাদে ভূমি দস্যুর অপবাদ দেয়ায় শ্রীনগরে সংবাদ সম্মেলন করা হয়েছে। রোববার দুপুরে শ্রীনগর প্রেস ক্লাব মিলনায়তনে এই সংবাদ সম্মেলনের আয়োজন করেন উপজেলার পাটাভোগ ইউনিয়নের কামারখোলা গ্রামের হাজী মো. রুহুল আমিনের ছেলে মো. আজিম মিয়া (আজিম আমিন)।

সংবাদ সম্মেলনে মো. আজিম মিয়া তার লিখিত বক্তব্যে বলেন, আপনাদেরকে অবগত করিতেছি যে গত ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ইং তারিখে একাধিক জাতীয় ও স্থানীয় পত্রিকাসহ কয়েকটি অনলাইন পোর্টালে প্রকাশিত সংবাদে আমাকে ও আমার বাবাকে ভূমিদস্যু আখ্যায়িত করা হয়েছে। এছাড়া জাল দলিল সৃজন করে পূর্ব কামারখোলা বাইতুল আমান জামে মসজিদ ও সংলগ্ন মাদ্রাসার জমি এবং মাঠ দখল করার পায়তারা করছি প্রকাশিত সংবাদটিতে তথ্য বিভ্রাট রয়েছে।

এতে করে আমাদের সম্মান হানি হয়েছে। প্রকৃতপক্ষে আমি বা আমার বাবা কেউই এলাকার ভূমিদস্যু নই। কারণ সংবাদে উল্লেখিত দাগের সম্পত্তির মালিক বায়তুল আমান জামে মসজিদ কিংবা ফোরকানিয়া মাদ্রাসাও নয়। কামারখোলা মৌজার আরএস দাগ নং-৪১৯, খতিয়ান নং-০১, পরিমান-৫৬ শতাংশ যার মালিক বাংলাদেশ সরকার। আরএস ৪১৯ দাগে আমাদের কোনও দাবী-দাওয়া নাই। অন্যদিকে সাংবাদে প্রকাশিত আরএস ২৮৯নং দাগের (খতিয়ান নং-৩,৫,১২৪,২৭৩,৩১৮) জমিতে কোন মসজিদ মাদ্রাসা তৈরী করা হয়নি বা খেলার মাঠ হিসেবেও গড়ে উঠেনি। যার প্রমান সরেজমিন পরিদর্শন করলেই জানতে পারবেন।

তিনি আরো বলেন, প্রকাশিত সংবাদে আরোও উল্লেখ করা হয়েছে যে, আমরা জাল দলিল তৈরী করে মাঠ, মসজিদ ও মাদ্রাসার ১ একর ১৬ শতাংশ জমি দখলের পায়তারা করছি। যেখানে দাগ নম্বর উল্লেখ করা হয়েছে আরএস ৪১৯ ও আরএস ২৮৯। সেখানে আমার ভোগদখলকৃত জমির দাগ নম্বর আরএস ২৮৯! যা কিনা উচ্চ আদালতে মামলা চলমান রয়েছে। মামলার কারণ হিসেবে তিনি বলেন, আমার দেওয়ানী মামলায় ২নং বিবাদী ইসমাইল বেপারীর সহযোগীতায় তার বাবা আমির হোসেন আমার বাবা হাজী মো. রুহুল আমিনের নিকট হইতে ১৯৬৪ সালে ও ১৯৭৪ সালে টাকা নিয়ে জমি ক্রয় করে দখল বুঝিয়ে দেয়। তার প্রায় তেইশ বছর পর ইসমাইল দলিলটি বুঝিয়ে দিলে তাদের সাথে আমাদের সম্পর্কের অবনতি হয়। পর্যায়ক্রমে জানতে পারি আমির হোসেন জাল দলিল দিয়ে আমার বাবাকে সম্পত্তি কিনে দিয়ে আমাদের সাথে প্রতারণা করেছে।

বিষয়টি বুঝতে পেরে উক্ত আরএস ২৮৯ দাগের রাস্তা বাদে ৪৯ শতাংশের জন্য আদালতে ইসমাইলের দেওয়া জাল দলিলটি বাতিল চেয়ে স্থায়ীভাবে দখলভোগ চেয়ে আদালতে মোকদ্দমা করি। এরই ধারাবাহিকতায় গত ১৫ দিন আগে ইসমাইল আমার বাবা ও আমার বিরুদ্ধে জাল দলিলের মিথ্যা (সিআর) মামলা করেন। এবং স্বেচ্ছায় ওই মামলা তিনি প্রত্যাহার করলে আদালত আমাদেরকে খালাস দেয় (মামলা নং-২৫৫/২০১৯)। আমার প্রশ্ন তাহলে আমরা কিভাবে ভূমিদস্যু হলাম? একটি মহলের কারসাজিতে সাংবাদিকদের মিথ্যা ও ভুল তথ্য দিয়ে আমাদের বিরুদ্ধে গত ২৮ সেপ্টেম্বর শনিবার পত্রিকায় যে সংবাদ প্রকাশিত করা হয়েছে আমরা তার তিব্র নিন্দা ও প্রতিবাদ জানাচ্ছি। এ সময় আজিম মিয়ার আত্মীয় স্বজনসহ পরিবারের লোকজন উপস্থিত ছিলেন।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT