রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

রবিবার ৩১ মে ২০২০, ১৭ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০১:১১ অপরাহ্ণ

পোশাকের ক্রেতাদেরও দায়িত্ব নিতে হবে

প্রকাশিত : ০৭:১৫ AM, ৬ নভেম্বর ২০১৯ Wednesday ৭২ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

তৈরি পোশাক শিল্পের টেকসই বাণিজ্যে ক্রেতাদের আরও দায়িত্ব নিতে হবে। শুধু মুনাফায় দৃষ্টি না রেখে পরিবেশসম্মত উৎপাদনেও সহায়ক ভূমিকা রাখতে হবে। কেননা, তারাও দায় এড়াতে পারেন না। পোশাক বাণিজ্যের শুরু থেকে এখন পর্যন্ত উদ্যোক্তারা এ দায়িত্ব পালন করছেন। এ দু’পক্ষের পাশাপাশি সরবরাহ ব্যবস্থায় যুক্ত সব পক্ষকে স্বচ্ছ ও দায়িত্বশীল ভূমিকা নিতে হবে।

রাজধানীর ইন্টারন্যাশনাল কনভেনশন সিটি বসুন্ধরায় (আইসিসিবি) গতকাল মঙ্গলবার সাসটেইনেবল অ্যাপারেল ফোরামের (এসএএফ) দিনব্যাপী বিভিন্ন কর্মঅধিবেশনে এসব কথা বলেছেন জাতীয় ও আন্তর্জাতিক বিশেষজ্ঞরা। আরও বেশি সামাজিক সংলাপের মাধ্যমে এসব ধারণা কার্যকর করার সুপারিশ করেন তারা।

বাংলাদেশ অ্যাপারেল এক্সচেঞ্জ (বিএই) এবং পোশাক উৎপাদক ও রপ্তানিকারকদের সংগঠন বিজিএমইএ এ ফোরামের আয়োজন করে। ফোরামের পাশাপাশি ডেনিম পণ্যের দু’দিনের প্রদর্শনীও গতকাল শুরু হয়েছে একই ভেন্যুতে। বিশ্ব ডেনিমের ক্রেতা-বিক্রেতাদের প্রতিনিধিরা এতে অংশ নেন। মূলত এটি উদ্যোক্তাদের আসর হলেও খ্যাতনামা ব্র্যান্ড এইচঅ্যান্ডএম এবার প্রদর্শনীতে পণ্য

প্রদর্শন করছে।

গতকাল উদ্বোধন অনুষ্ঠানে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের মেয়র আতিকুল ইসলাম বলেন, পোশাক খাতকে টেকসই করার ক্ষেত্রে ক্রেতাদেরও দায়িত্ব নিতে হবে। পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী শাহরিয়ার আলম এ খাতকে টেকসই ও কমপ্লায়েন্ট করতে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে দায়িত্ব নেওয়ার আহ্বান জানান।

ঢাকায় কানাডার হাইকমিশনার বেনয়ে প্রেফন্টেইন বলেন, সরবরাহ চেইন ইস্যুতে বিভিন্ন সময় তাদের অনেক প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়। শ্রম ইস্যু, কারখানা পরিদর্শন ব্যবস্থাসহ সার্বিক স্বচ্ছতার বিষয়টি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ। কানাডার ভোক্তারা এসব বিষয়ে জানতে চান। কর্মপরিবেশ ইস্যু শুধু শ্রমিক বা তাদের পরিবারের জন্য নয়। এটি বাংলাদেশের অর্থনীতির জন্যও গুরুত্বপূর্ণ।

সুইডেনভিত্তিক ব্র্যান্ড এইচঅ্যান্ডএমের সাসটেইনেবিলিটির প্রধান পিয়েরে বারজেসন বলেন, কর্মক্ষেত্রের পরিবেশ উন্নয়নে শক্তিশালী সামাজিক সংলাপ প্রয়োজন। বিজিএমইএ এ ক্ষেত্রে উদ্যোগ নিতে পারে। বিশেষত শ্রমিকের মজুরি বাড়ানো, স্বাস্থ্য, শিক্ষা ও লিঙ্গভিত্তিক সমতার বিষয়টি নিশ্চিত করতে এ ধরনের সংলাপ ভালো ফল দিতে পারে। এ সময় জলবায়ুর পরিবর্তনজনিত ইস্যুটি কীভাবে সরবরাহ চেইনে প্রভাব ফেলতে পারে, সে বিষয়েও আলোকপাত করেন তিনি। আরও বক্তব্য দেন বিজিএমইএর পরিচালক মহিউদ্দিন রুবেল। এ সময় আয়োজক প্রতিষ্ঠানের প্রধান মোক্তাফিজ উদ্দিনসহ অন্যরা উপস্থিত ছিলেন।

অন্যান্য অধিবেশনে বক্তারা বলেন, মুনাফার সিংহভাগ নিয়ে যায় ক্রেতা ও ব্র্যান্ডগুলো। উদ্যোক্তারা কতটা সুবিধা পেল তা বিবেচনায় আসে না। বিজিএমইএর পরিচালক আব্দুল মোমেন বলেন, পুরো সরবরাহ চেইনে এক ধরনের অবিশ্বাস কাজ করছে। এখানে স্বচ্ছতা আসা প্রয়োজন। শ্রমিক নেত্রী নাজমা আক্তার বলেন, বাংলাদেশের অনেক ভালো বিষয় থাকলেও তা আলোচনায় আসে না।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT