রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

বৃহস্পতিবার ১২ ডিসেম্বর ২০১৯, ২৮শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পেঁয়াজের বাজারে আগুন, পুড়ছে সাধারণ মানুষ!

প্রকাশিত : 06:42 AM, 16 November 2019 Saturday ৫৭ বার পঠিত

অনলাইন নিউজ ডেক্স :
alokitosakal

রীতিমত আগুন লেগেছে পেঁয়াজের বাজারে! আর আগুনে পুড়ছে সাধারণ মানুষ! এটি তাপের আগুন নয়, দামের আগুন। রাজধানীতে বর্তমানে ২৪০ থেকে ২৮০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে পেঁয়াজ! পেঁয়াজের দামের এ উর্ধ্বগতি গত সেপ্টেম্বর মাস থেকে। প্রতিবেশী দেশ ভারত রফতানি বন্ধ করায় বাংলাদেশের পেঁয়াজের বাজার অস্থির হয়ে ওঠে। সম্প্রতি ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণেও পেঁয়াজের বাজার অস্থির হতে শুরু করেছে। জানা গেছে, চাহিদার শতকরা ৬০ ভাগ মেটানো হয় দেশে উৎপাদিত পেঁয়াজ থেকে। বাকি ৪০ ভাগ আমদানি করা হয়। আর ভারত থেকেই সিংহভাগ আমদানি করা হয়। ভারত রফতানি বন্ধ করে দেয়ায় বাংলাদেশে পেঁয়াজের বাজারে ব্যাপক প্রভাব পড়ে। দফায় দফায় বাড়ে পেঁয়াজের দাম। পরিস্থিতি মোকাবিলায় মিয়ানমার, চীন ও মিশর থেকে পেঁয়াজ আমদানি করা হলেও দাম এখনও নিয়ন্ত্রণে আসেনি। পেঁয়াজের এমন দামে হতবাক সাধারণ মানুষ।

মনিরুল নামের রাজধানীর একজন ক্রেতা বিডি২৪লাইভ ডটকমকে বলেন, গতকাল পেঁয়াজের দাম ২২০ টাকা থাকলেও আজকে ২৮০ টাকা কেজি দরে আমি আধা কেজি পেঁয়াজ কিনেছি। এভাবে দাম বাড়তে থাকলে সাধারণ মানুষ কোথায় যাবে? এদিকে, পেঁয়াজের অব্যাহত মূল্যবৃদ্ধিতে বৃহস্পতিবার জাতীয় সংসদে ক্ষোভ প্রকাশ করেছেন সরকার ও বিরোধী দলের একাধিক সংসদ সদস্য। তারা নিত্য প্রয়োজনীয় এই পণ্যের দাম নিয়ন্ত্রণে কার্যকর ব্যবস্থা নেওয়ার দাবি জানিয়েছেন। পেঁয়াজের দাম বাড়ার পেছনে কোনো ষড়যন্ত্র আছে কি না, সে প্রশ্নও তুলেছেন কেউ কেউ।

সাবেক স্বাস্থ্যমন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম বলেন, পেঁয়াজের ঝাঁজ বেশি হয়ে যাচ্ছে। মানুষের মধ্যে এটা নিয়ে প্রতিক্রিয়া হচ্ছে। মানুষের মধ্যে কোনো প্রতিক্রিয়া হলে সেটা খারাপ হবে। পেঁয়াজের দাম প্রায় ২০০ টাকা হয়ে গেছে। বলা হচ্ছে, বিদেশ থেকে আমদানি করা হচ্ছে। তাহলে কেন দাম বাড়ছে? এটা বোধগম্য নয়। সাবেক বাণিজ্যমন্ত্রী তোফায়েল আহমেদ বলেন, দেশের অর্থনৈতিক ও বাণিজ্যিক ব্যাপারে অর্থমন্ত্রীর অনেক কর্তব্য রয়েছে। ঘূর্ণিঝড় বুলবুলের কারণে পেঁয়াজের দাম একটু হয়তো বেড়েছে। আজকে পেঁয়াজের কেজি ২০০ টাকা। আমরা কোনোদিনই এটা ভাবিনি। পেঁয়াজ আমদানিতে সাময়িকভাবে শুল্ক তুলে দেয়ার পরামর্শ দিয়ে অর্থমন্ত্রীর উদ্দেশে সাবেক এ বাণিজ্যমন্ত্রী বলেন, যারা পেঁয়াজ আমদানি করেন, তাদের সুবিধা দিন। অন্তত কিছুদিনের জন্য আমদানি শুল্ক শূন্য করে দিন। এ ঘোষণা দেয়া হলে দেখা যাবে, এর প্রভাব বাজারে পড়ছে।

বিরোধীদল জাতীয় পার্টির সংসদ সদস্য মুজিবুল হক বলেন, গত পরশু বাজারে পেঁয়াজের কেজি ছিল ৮০ টাকা। ওইদিন এই সংসদে বাণিজ্যমন্ত্রীর পক্ষে শিল্পমন্ত্রীর দেয়া বক্তব্যে পেঁয়াজের মূল্য সরকারের নিয়ন্ত্রণে আছে বললেন। এটা বলার পরদিন দাম হয়ে গেল ১৫০ টাকা। আর আজকে হলো ২০০ টাকা। অথচ ভারতে পেঁয়াজের দাম না পেয়ে কৃষক কাঁদছেন।

পেঁয়াজের দাম বাড়ার পেছনে ষড়যন্ত্র আছে কি না, তা খতিয়ে দেখারও দাবি জানিয়ে তিনি বলেন, বাজারে পেঁয়াজ নেই, এমন নয়। বাজারে প্রচুর পেঁয়াজ আছে। কিন্তু দাম বাড়ছে। স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী ও বাণিজ্যমন্ত্রীকে বলব, আপনারা বের করেন, এটা ষড়যন্ত্র কি না? মানুষ পেঁয়াজ কিনতে পারে না, কেবল এটা নয়, সরকারের বিরাট একটা বদনাম হচ্ছে। কিছু খারাপ কাজের জন্য অনেক ভালো কাজ ম্লান হয়ে যায়। এর আগে গত মঙ্গলবার বাণিজ্যমন্ত্রী টিপু মুনশি বলেন, ভারত পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ রাখায় এবং দেশে উৎপাদিত পেঁয়াজ চাহিদা মেটাতে যথেষ্ট না হওয়ায় পেঁয়াজের দাম কমছে না। রফতানির নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহারে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে দিল্লিতে বাংলাদেশ হাইকমিশনের কর্মাশিয়াল কাউন্সিলের সঙ্গে যোগাযোগ অব্যাহত রয়েছে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০১৯ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT