রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

রবিবার ১১ এপ্রিল ২০২১, ২৮শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৭:০৪ অপরাহ্ণ

শিরোনাম
◈ করোনার দ্বিতীয় টিকা নিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান – মোফাজ্জল হোসেন খান ◈ কাভার্ডভ‌্যান চাপায় না.গ‌ঞ্জ সিআইডির কন‌স্টেবল নিহত ◈ নারায়ণগঞ্জে ভ্রাম্যমাণ গাড়িতে মিলছে দুধ ডিম মাংস ◈ ধামইরহাটে নর্থওয়েষ্ট ক্যাবল নেটওয়ার্কে তালা, ভোগান্তিতে স্যাটেলাইট গ্রাহকরা ◈ ধামইরহাটে ২য় ধাপের করোনা মোকাবিলায় তৎপর প্রশাসন করোনায় আক্রান্ত স্বাস্থ্য প্রশাসক ও মুক্তিযোদ্ধা আইসোলেশনে ◈ দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিলেন  গৌরীপুরের গণমাধ্যমকর্মীরা ◈ ইউএনও’র মোবাইল নাম্বার ক্লোন করে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে টাকা দাবি ! ◈ রাজারহাট উপজেলা ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স এর শুভ উদ্বোধন ◈ শ্রীনগরে বাড়ৈগাঁও-পশ্চিম নওপাড়া সড়কটি এখন মৃত্যুকুপ! ◈ তিতাসে গোমতী নদীর পাড় ও ডিম চরের মাটি যাচ্ছে ইট ভাটায়

পৃথিবীর কান ঘেঁষে বেরিয়ে যাবে বিশালাকার গ্রহাণু

প্রকাশিত : ১০:৫১ AM, ৭ অগাস্ট ২০১৯ বুধবার ৩১০ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

 

১৯৯৮ সালে মুক্তি পাওয়া ‌‌‘ডিপ ইপমপ্যাক্ট’ চলচ্চিত্রটির কথা কি কারো মনে আছে? পৃথিবীর দিকে ধেয়ে আসছিল মাত্র সাত মাইল লম্বা একটি গ্রহাণু। অনেক চেষ্টার পর সেটিকে দুই টুকরো করলেও ছোট টুকরোটি আছড়ে পড়ে আটলান্টিক মহাসাগরে এবং মেগাসুনামির সৃষ্টি করে। সাড়ে তিন হাজার ফুট উচু ঢেউ মুহূর্তেই মুছে দেয় কয়েক কোটি প্রাণ।

আর মাত্র তিনদিন পর আমেরিকার এম্পায়ার স্টেট বিল্ডিংয়ের চেয়েও বড় একটি গ্রহাণু পৃথিবীর ধার ঘেঁষে বেরিয়ে যাবে। নাসা জানিয়েছে, তারা গ্রহাণুর গতিবেগ পরিমাপ করে জানিয়েছে, ১০ অগাস্ট ঘণ্টায় ১৬,৭৪০ কিলোমিটার বেগে পৃথিবীর পাশ দিয়ে চলে যাবে এই বৃহদাকার গ্রহাণু। এর নাম অ্যাস্টারয়েড ২০০৬ কিউকিউ ২৩। যার ব্যাস প্রায় ৫৬৯ মিটার। অবশ্যই এটি অনুমান সাপেক্ষ। পৃথিবী থেকে ০.০৪৯ অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল ইউনিটের (প্রায় ৭.৪ মিলিয়ন কিলোমিটার) মধ্যে দিয়ে উড়ে যাবে এই গ্রহাণু।

যেহেতু গ্রহাণুটি পৃথিবীর ০০.০৫ অ্যাস্ট্রোনমিক্যাল ইউনিট পরিসরের মধ্যে রয়েছে, তাই এটি সম্ভাব্য বিপজ্জনক হিসাবে চিহ্নিত করা হয়েছে। তবে এমনটা মনে করার কোনো কারণ নেই যে পৃথিবীতে এসে আছড়ে পড়বে সেটি। নাসার প্ল্যানেটারি ডিফেন্স কো-অর্ডিনেশন অফিসের দুই সদস্য লিন্ডসে জনসন এবং কেলি ফাস্ট সিএনএনকে জানিয়েছেন, গ্রহাণু ২০০৬ কিউকিউ ২৩ কে ট্র্যাক করছেন তারা।

নাসার ওয়েবসাইটের পেজে ব্যাখ্যা করা আছে, কয়েক মিটার আকারের ছোট ছোট গ্রহাণু মাসে বেশ কয়েকবার পৃথিবী এবং চাঁদের কক্ষপথের মধ্যে ঢুকে পড়ে। এই গ্রহাণুগুলি পৃথিবীর বায়ুমণ্ডলে বারবার আঘাত হানে এবং প্রতিদিনই প্রায় মহাকাশে বিস্ফোরিত হয়। যে কারণে মাঝেমাঝেই রাতের আকাশে তারা খসা দেখতে পাওয়া যায়। কখনও কখনও এগুলি উল্কা হিসাবে পৃথিবীর মাটিতেও ধেয়ে আসে।

এছাড়াও নাসা বর্তমানে আরেকটি গ্রহাণু নিয়ে পর্যবেক্ষন শুরু করেছে। যার নাম বেন্যু। ২১৭৫ থেকে ২১৯৫ সালের মধ্যে পৃথিবীতে আছড়ে পড়ার একটি ক্ষীণ সম্ভাবনা রয়েছে এই গ্রহাণুর।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT