রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

রবিবার ২৪ অক্টোবর ২০২১, ৯ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

০৬:১৭ পূর্বাহ্ণ

পিরিয়ড পরিচ্ছন্নতা দিবসে স্বাস্থ্য সচেতনতা

প্রকাশিত : ০২:৪৩ PM, ২৮ মে ২০২১ শুক্রবার ১৬৬ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

জান্নাতুল ফেরদৌস

আজ ২৮ মে, বিশ্ব পিরিয়ড পরিচ্ছন্নতা দিবস। পিরিয়ড বা ঋতুস্রাব নারীদের জীবনের অন্যতম একটি গুরুত্বপূর্ণ বিষয়। কিশোরী থেকে একটি পূর্ণ নারী হয়ে ওঠার যাত্রাই হলো এই পিরিয়ড। এটি একটি স্বাভাবিক প্রক্রিয়া। নারী-পুরুষ উভয়েরই মানব সৃষ্টির শুরু থেকেই এ নিয়ে তাই নানান জল্পনা কল্পনা থাকলেও আজ একবিংশ শতাব্দীতে এর প্রেক্ষাপটে এসেছে অনেক পরিবর্তন।

নানান মিশ্র অনুভূতির অন্তরালে, বহু প্রশ্ন ও বাঁধা পেড়িয়ে, যদিও এখনো পিরিয়ড সমাজের একটা বিশেষ জনগোষ্ঠির কাছে ট্যাবু হয়েই ধরা দেয়। তবুও প্রতিদিন মানুষ ট্যাবু ভাংছে এবং দেশের প্রায় প্রতিটি মানুষের কাছে ছড়িয়ে দিচ্ছে সচেতনতার বার্তা। পিরিয়ড কোন অস্বাভাবিক বা নিয়মবহিভূর্ত কোন প্রক্রিয়া নয়। এটি মেয়েদের শরীরে প্রতি মাসে নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তর চক্রাকারে আবির্ভূত একটি সহজাত শারীরবৃত্তীয় প্রক্রিয়া, যা সরাসরি সন্তান জন্মদানের সাথে সম্পৃক্ত।

মেয়েরা জন্মের সময়েই সুনির্দিষ্ট ডিম্বাণু নিয়ে জন্মগ্রহন করে।যার সংখ্যা প্রায় ১০- ২০ লাখ হতে পারে। কৈশোরকালীন সময় থেকেই প্রতি মাসে একবার একটি নির্দিষ্ট চক্র সম্পাদনের মাধ্যমে পিরিয়ড শুরু হয়,যা পরবর্তীতে নারীদেহে প্রায় ৫০-৬০ বছর পর্যন্ত স্থায়ী হয়। পিরিয়ড কত বছর পর্যন্ত নারীদেহে স্থায়ী হবে তা নির্ভর করে শরীরে থাকা ডিম্বাণুর পরিমাণের উপর। প্রতি মাসে হওয়া পিরিয়ডে একটি করে ডিম্বাণু নিঃশেষ হয়। সুস্থ ও স্বাভাবিক নিয়মে পিরিয়ড হওয়া সরাসরি সন্তান জন্মদানের সাথে সম্পৃক্ত থাকায় এটি ভীষণ গুরুত্বপূর্ণ। সঠিক সময়ে ও সঠিকভাবে পিরিয়ড না হলে তা একটি সুস্থ সন্তান জন্মদানে বাঁধা হতে পারে, এমনকি সম্পূর্ণভাবে অক্ষমও হতে পারে। তাই পিরিয়ড ও পিরিয়ড চলাকালীন সময়ের পরিচ্ছন্নতা হতে হবে সর্বোচ্চ।

কৈশোরকালীন সময়েই মেয়েদের বাড়ি থেকে মা, বোনদের দ্বারা এ বিষয়ে জানার সুযোগ থাকে। এছাড়াও স্কুল- কলেজে শিক্ষিকাদের দ্বারাও তারা এ বিষয় সম্পর্কে পরিপূর্ণ ধারণা লাভ করেন।এছাড়াও পিরিয়ড ও পিরিয়ড সময়কালীন পরিচ্ছন্নতা বিষয়টি পাঠ্যক্রমের অন্তর্ভুক্ত থাকায় তা শেখানো আরও সহজ। এ সময়কালীন পরিষ্কার ও পরিচ্ছন্নতা বিশেষ জরুরি। সন্তান জন্মদানের সাথে সরাসরি সম্পৃক্ত অঙ্গসমূহের গুরুত্ব বেশি থাকায়, পিরিয়ড চলাকালীন সময়ে প্রতিদিন পরিচ্ছন্ন থাকা তাই অবশ্য পালনীয়।

মেয়েদের এ সময়ে স্যানিটারি ন্যাপকিনসহ সাধ্যমতো সুবিধা গ্রহণ করতে হয়। এছাড়া, বর্তমানে ম্যানস্ট্রুয়াল কাপ সহ আরও নানান মাধ্যম আসায় পিরিয়ডকালীন সময়ের ভোগান্তি ও কষ্ট অনেকাংশেই লাঘব করা সম্ভব হচ্ছে। তবে, নির্দিষ্ট একটা জনগোষ্ঠীর কাছে এর সঠিক সচেতনতা তৈরি এখনো একটি বিশাল চ্যালেঞ্জ হয়ে রয়ে গেছে। বিশেষ করে গ্রামীন ও প্রত্যন্ত এলাকায় এখনো পিরিয়ড রয়ে গেছে ট্যাবু হয়েই। তাই তাদের কাছে পিরিয়ড পরিচ্ছন্নতা তথা এ বিষয় সম্পর্কিত সঠিক তথ্য তুলে ধরা এখনো কঠিন। সচেতনতা বৃদ্ধিতে সরকারি ও বেসরকারি পর্যায়ে প্রতিদিনই নতুন নতুন উদ্যোগ গ্রহন করা হচ্ছে।মেয়েদের সেখানো হচ্ছে স্বাস্থ্যসচেতনতা ও পিরিয়ডকালীন পরিচ্ছন্নতা। এছাড়াও, বিনামূল্যে বা নামমাত্র মূল্যে দেওয়া হচ্ছে স্যানিটারি ন্যাপকিন।

যদিও পাশ্চাত্য দেশগুলোর তুলনায় আমাদের দেশে স্যানিটারি ন্যাপকিন এর দাম অনেক বেশি হওয়ায় একটি নিন্মবিত্ত বা নিম্নমধ্যবিত্ত পরিবারের কাছে তা ক্রয় সাপেক্ষ নয়। বাধ্য হয়ে তাই তাদের ব্যবহার করতে হচ্ছে ছেড়া কাপড়,তুলো ইত্যাদি যা মারাত্মক স্বাস্থ্যঝুকির সৃষ্টি করে। এছাড়া পিরিয়ড চলাকালীন অপরিচ্ছন্নতা জরায়ুমুখের ক্যান্সারের কারণ ও তৈরি করে। যার দরুণ প্রায় প্রতিদিন দেশে জরায়ুমুখের ক্যান্সারের রোগী শনাক্ত হচ্ছে।

বাংলাদেশের সব স্থানে যেখানে পরিষ্কার, পরিচ্ছন্ন পাবলিক টয়লেট পাওয়া দুষ্কর, সেখানে নারীদের পিরিয়ডকালীন সময়ে ভোগান্তি পোহাতে হবে তা অস্বাভাবিক কিছু নয়। পরিষ্কার, পরিচ্ছন্ন পাবলিক টয়লেটের তেমন সুব্যবস্থা না থাকায় বাধ্য হয়েই প্রতিদিন অনেক মেয়েদের কষ্ট করতে হয়, পড়তে হয় নানান বিড়ম্বনায়। নির্দিষ্ট সময় অন্তর অন্তর স্যানিটারি ন্যাপকিন বদলে নেওয়া প্রয়োজন।অতিরিক্ত সময় ধরে ব্যবহারের ফলে স্যানিটারি ন্যাপকিনে থাকা জেল জরায়ু মুখে ক্ষতের সৃষ্টি করতে পারে যা পরবর্তীতে নানান রোগ ও জরায়ু ক্যানসারের ঝুঁকি বাড়ায়। তাই পরিষ্কার-পরিচ্ছন্ন টয়লেটের পাশাপাশি নারীদের জীবনের গুরুত্ব বিবেচনা করে বিনামূল্যে স্যানিটারি ন্যাপকিনের ব্যবস্থা রাখাও ভীষণ জরুরি।

লেখক: শিক্ষার্থী, হাবিবুল্লাহ বাহার ইউনিভার্সিটি কলেজ

সাজেদুরআবেদীনশান্ত/স্টাফ রিপোর্টার

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT