রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

সোমবার ২৫ জানুয়ারি ২০২১, ১২ই মাঘ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

১০:৫২ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

পাহাড় ঘিরে নানা প্রকল্প

প্রকাশিত : ০৭:৫৯ AM, ৭ অক্টোবর ২০১৯ সোমবার ১৩৭ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

প্রতি বছর রাঙামাটি পার্বত্য জেলার দৃষ্টিনন্দন ঝুলন্ত সেতু দেখতে যান প্রায় দুই থেকে তিন লাখ পর্যটক। তাদের সংখ্যা ক্রমেই বাড়ছে। তাই দ্বিতল মোটেলের যুগ পেরিয়ে এখন চার তলার আধুনিক পর্যটন মোটেলের সময়ে প্রবেশ করেছে রাঙামাটি হলিডে পর্যটন কেন্দ্র। আছে ট্রাইবাল কটেজের সেবাও। পর্যটকদের সেবা দিতে আছে বার সুবিধা।

পাহাড়কে ঘিরে পর্যটকদের এমন আগ্রহের পরিপ্রেক্ষিতে তিন পার্বত্য জেলাকে ঘিরে নানা পর্যটন প্রকল্প বাস্তবায়নের উদ্যোগ নিয়েছে বাংলাদেশ পর্যটন করপোরেশন (বিপিসি)। যেমন রাঙামাটির অন্যতম আকর্ষণ অর্ধশত বছরের পুরনো ঝুলন্ত সেতুটির আধুনিকায়নের লক্ষ্যে হাতে নেওয়া হয়েছে দেড়শ’ কোটি টাকার ‘আধুনিক ঝুলন্ত সেতু ও বিনোদন সুবিধা সৃষ্টি প্রকল্প’।

একইভাবে বান্দরবানের থানচির সাঙ্গু নদীর পাড়ে নয়নাভিরাম ডিমপাহাড় ঘিরে পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণের পরিকল্পনা করেছে বিপিসি। ডিমপাহাড়ে সরকারি খাসজমির বরাদ্দ নিতে বিপিসি চিঠি দিয়েছে বান্দরবান জেলা প্রশাসকের কাছে। চাহিদা অনুযায়ী জায়গা পেলে সেখানে আধুনিক পর্যটন কেন্দ্র, হোটেল ও কটেজ নির্মাণের পরিকল্পনা রয়েছে প্রতিষ্ঠানটির। খাগড়াছড়ির আলুটিলার গুহা, রিসাং ঝর্ণাসহ একাধিক বিনোদন স্পটকে ঘিরেও পর্যটন কেন্দ্র তৈরির সম্ভাব্যতা যাচাই করছে বিপিসি।

এ প্রসঙ্গে বিপিসির ডেপুটি ম্যানেজার (পরিকল্পনা) শিপ্রা দে বলেন, ‘দেড়শ কোটি টাকা ব্যয়ে রাঙামাটি ঝুলন্ত সেতু পুনর্নির্মাণ ও বিনোদন সুবিধা রাখা প্রকল্পটি সরকারের অনুমোদনের জন্য সবুজ পাতায় রয়েছে। এ ক্ষেত্রে ফিজিবিলিটি স্টাডির ওপর গুরুত্ব আরোপ করা হয়েছে।

স্টাডির পরই সেতুটি নির্মাণ প্রক্রিয়া নিয়ে সিদ্ধান্ত চূড়ান্ত করা হবে। দেশের বাইরের কোনো

মডেলে এ ঝুলন্ত সেতু করা যায় কি-না, তাও বিবেচনা করা হচ্ছে।’

শিপ্রা দে জানান, বান্দরবানের ডিমপাহাড়ে পর্যটন কেন্দ্র নির্মাণের জন্য জমি সংগ্রহের উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। ডিমপাহাড়ে খাসজমি পাওয়া গেলে সেখানে পাহাড়ের সৌন্দর্য নির্মলভাবে উপভোগের সুযোগ আরও বাড়বে। এখানে তরুণ পর্যটকদের আসা-যাওয়া অনেক বেশি হবে বলে জানান তিনি।

দেশের পর্যটন স্পটগুলোর মধ্যে পার্বত্য চট্টগ্রামের ব্যাপারে দেশি-বিদেশি পর্যটকদের আকর্ষণ তুলনামূলকভাবে বেশি। রাঙামাটির সাজেক এখন ভ্রমণপিপাসুদের পদচারণায় সব সময়ই মুখর থাকে। রাঙামাটির নতুন বিনোদন কেন্দ্র পলওয়েল পার্কেও মাচাং কটেজে বসে কাপ্তাই হ্রদের সৌন্দর্য উপভোগ করা যাচ্ছে। সেখানে সুইমিং পুলও রয়েছে হ্রদের পাশে। আছে হ্রদ ভ্রমণের জন্য বিচ বাইকও। শহরের প্রবেশমুখে গড়ে ওঠা ভেদভেদী এলাকার বিনোদন কেন্দ্রও এখন পর্যকটদের মধ্যে সাড়া ফেলেছে। এ ছাড়া রাঙামাটির সুবলং ঝর্ণার ঝিরিঝিরি বাতাস সবাইকেই দোলা দেয়। ঘাগড়ার ঝর্ণায় ভিজতে আসা মানুষের সংখ্যাও বাড়ছে প্রতিনিয়ত।

ডিমপাহাড়ের অবস্থান বান্দরবান থেকে প্রায় ৩৫ কিলোমিটার দূরে সমতল থেকে আড়াই হাজার ফুট ওপরে। এর একপাশে বইছে সাঙ্গু নদী। বাকি তিন দিকে সবুজ পাহাড় ও অরণ্য। সকাল-বিকাল এখানে দুই পাহাড়ের মধ্যে খেলা করে মেঘ। এটি জেলার আলীকদম এবং থানচি উপজেলার ঠিক মাঝখানে অবস্থিত। এই পাহাড় দিয়েই নির্ধারিত হয়েছে দুই থানার সীমানা। আড়াই হাজার ফুট উঁচু এ পাহাড় চূড়ার আকৃতি দেখতে ডিমের মতো হওয়ায় এটি পরিচিত হয়ে উঠেছে ডিমপাহাড় নামে।

২০১৭ সালের ২৮ আগস্ট ১২০ কোটি টাকা ব্যয়ে ৩৫ কিলোমিটার দীর্ঘ সড়ক তৈরির পর ডিমপাহাড়ে দেশি-বিদেশি পর্যটকের যাতায়াত আরও বেড়েছে। জমি পেলে শিগগির ডিমপাহাড় ঘিরে পর্যটন কেন্দ্র ও বিনোদনের সুযোগ-সুবিধা প্রকল্প হাতে নেবে বিপিসি। এ ছাড়া খাগড়াছড়িতেও কয়েকটি স্পটে বিনোদন কেন্দ্র তৈরির পরিকল্পনা ও সম্ভাব্যতা যাচাই করছে বিপিসি। এমন প্রেক্ষাপটে বিপিসি ‘পার্বত্য জেলাগুলোতে বিনোদন সুবিধা প্রবর্তন, সম্প্রসারণ ও সক্ষমতা বৃদ্ধি স্টাডি প্রকল্প’ নামে আট কোটি টাকার একটি প্রকল্প বাস্তবায়ন করছে। পাহাড়কে ঘিরে পর্যটনের উদ্যোগ যাচাই-বাছাই করে দেখছে ‘প্রকল্প উপদেষ্টা লিমিটেড’। তারা পাহাড়ের এক প্রান্ত থেকে আরেক প্রান্ত ঘুরে ঘুরে পর্যটন সম্ভাবনা যাচাই করছেন বলে জানান বিপিসির ডেপুটি ম্যানেজার শিপ্রা দে।

পর্যটন করপোরেশন রাঙামাটির ব্যবস্থাপক সৃজন বিকাশ বড়ূয়া বলেন, রাঙামাটির ঝুলন্ত সেতুর আধুনিকায়ন সম্পন্ন হলে সেতুটি আরও দৃষ্টিনন্দন হবে। পর্যটক আসা আরও বাড়বে। ২০১৪ সালে এখানে ৩৯ রুমের চার তলা ভবনের একটি আধুনিক পর্যটন মোটেল চালু করা হয়েছে। সেখানে পর্যটকদের চাহিদা অনুযায়ী সেবা দেওয়া হচ্ছে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT