রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

বৃহস্পতিবার ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৪:৫১ অপরাহ্ণ

শিরোনাম
◈ পঁচাত্তরের পর সম্ভাবনা আর অধিকার হারিয়েছিলাম: প্রধানমন্ত্রী ◈ বগুড়ার শেরপুরে বুদ্ধি প্রতিবন্ধী গৃহবধূকে গণধর্ষণ, দুই ধর্ষক ও এক গ্রাম্য মাতব্বর গ্রেফতার ◈ ধুনট সরকারি কলেজে বন্যা আশ্রয়ণ কেন্দ্রের নির্মাণ কাজের উদ্বোধন করলেন ◈ ধুনটে ফুটপাত উচ্ছেদ অভিযানে ৩ ব্যবসায়ীর জরিমানা ◈ বগুড়ার শেরপুরে প্রতিপক্ষের ছুরিকাঘাতে যুবক আহত ◈ আউচপাড়া ইউনিয়নের হাড়িপাড়া বিল,ব্যক্তি মালিকানা জমিতে লিজের মাধ্যমেএলাকাবাসীর মাছচাষ ◈ আদমদীঘিতে জেলা পরিষদ সদস্যের বড় ভাইয়ের ইন্তেকাল ◈ নওগাঁর মহাদেবপুরে ভোক্তা অধিকার আইনে জরিমানা ◈ রাজশাহীর তাহেরপুর পৌরসভা বিএনপি’র আয়োজনে মতবিনিময় সভা ◈ পত্নীতলায় পউস ব্লাড এইড এর উদ্যোগে ফ্রি ব্লাড গ্রুপিং ক্যাম্পেইন

পাহাড়ে হাসছে জুমের সোনারং ধান

প্রকাশিত : ০৬:২৫ AM, ২৪ সেপ্টেম্বর ২০১৯ Tuesday ২৫১ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

পাহাড়ে শোভা পাচ্ছে জুমের পাকা ধান। সূর্যের মিষ্টি রোদ যখন সেই ধানের ওপর পড়ে তখন মনে হয় সোনা ছড়িয়ে পড়েছে পাহাড়ে। যখন মৃদুমন্দ বাতাসে বয়ে যায় তখন মনে হয় সোনালি ঢেউ খেলা করছে। মনোরম সেই দৃশ্য। পাকা ধানের গন্ধ ম ম করছে বান্দরবানের পাহাড়ি জনপদগুলোতে। শিশু-কিশোরসহ বিভিন্ন বয়সি মানুষ ধান কাটতে নেমেছে খেতে। ফসল ঘরে তুলতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছেন এখন জুমিয়া পরিবারগুলো। এদিকে ফসল ঘরে তোলার আনন্দে পাহাড়ি পল্লিগুলোতে নবান্ন উত্সবের প্রস্তুতিও চলছে জোরেশোরে। এবছর জুমের আশানুরূপ ভালো ফলন হয়েছে দাবি জুমিয়াদের।

কৃষি বিভাগের দেওয়া তথ্য মতে, চলতি বছর বান্দরবান জেলার সাতটি উপজেলায় প্রায় ৯ হাজার হেক্টর পাহাড়ের জমিতে জুম চাষ করা হয়েছে। গত বছরের তুলনায় জুম চাষ বেড়েছে এবার। উত্পাদনের লক্ষ্যমাত্রাও ধরা হয়েছে প্রায় ১৩ হাজার মেট্টিকটন।

উপসহকারী কৃষি কর্মকর্তা ভবতোষ চক্রবর্তী বলেন, কয়েকবছর ধরে জেলায় প্রতিবছরই জুমের চাষ ক্রমান্বয়ে বাড়ছে। এ বছর জুমের ফসলের ভালো ফলন হয়েছে। জুমের ধানসহ অন্যান্য ফসল ঘরে তুলতে ব্যস্ত সময় কাটাচ্ছে জুমিয়া পরিবারগুলো। পাহাড়ের জুম চাষ থেকে জুমিয়ারা সারাবছরের খাদ্য সংরক্ষণ করে।

পার্বত্য চট্টগ্রামে বসবাসরত পাহাড়িরা প্রতি বছর জেলার বিভিন্ন স্থানে শতশত পাহাড়ে আগুন লাগিয়ে ঝাড়-জঙ্গল পুড়িয়ে আদিপদ্ধতিতে জুম চাষ করে। জুমিয়ারা পাহাড়ে ধানের পাশাপাশি ভুট্টা, মরিচ, যব, সরিষা, মিষ্টি কুমড়া, মারফা, টকপাতা, ফুলসহ বিভিন্ন রকমের সবজি উত্পাদন করে। তবে একটি পাহাড়ে একাধিকবার জুম চাষ করা যায় না বলে জুমিয়ারা প্রতি বছর ভিন্ন ভিন্ন পাহাড়ে জুমের চাষ করে।

জেলায় বসবাসরত ম্রো, মারমা, তঞ্চঙ্গ্যা, খুমী, লুসাই, চাকমা, পাংখো, বম, চাকসহ ১১টি পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর অধিকাংশরাই জুম চাষের ওপর নির্ভরশীল। জেলা শহরের বসবাসরত কিছু সংখ্যক শিক্ষিত পরিবার ছাড়া দুর্গম পাহাড়ি গ্রামগুলোতে বসবাসরত পাহাড়িরা আজও জুম চাষের মাধ্যমে জীবিকা নির্বাহ করে। তবে ১১টি পাহাড়ি জনগোষ্ঠীর মধ্যে একমাত্র ম্রো সম্প্রদায় আদিকাল থেকে এখনো পর্যন্ত জুম চাষের মাধ্যমেই সারাবছরের জীবিকা সংগ্রহ করে। জুমিয়া পরিবারগুলো প্রতি বছর মার্চ-এপ্রিল মাসের দিকে জুম চাষের জন্য পাহাড়ে আগুন লাগান। আর মে-জুন মাসের দিকে আগুনে পোড়ানো পাহাড়ে জুম চাষ আরম্ভ করেন। প্রায় তিন-চার মাস পরিচর্যার পর সেপ্টেম্বর থেকে পাহাড়ে জুমের ধান কাটা শুরু করে জুমিয়ারা। বান্দরবানের রুমা, থানছি, রোয়াংছড়ি, আলীকদম, লামা, নাইক্ষ্যংছড়ি এবং সদর উপজেলার ট্যুরিস্ট স্পট মেঘলা, নীলাচল, নীলগিরি-চিম্বুক সড়কের রাস্তার দুপাশের পাহাড়গুলোতে এখন শোভা পাচ্ছে জুমখেতে উত্পাদিত ধানের সোনালি হাসি।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT