রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

মঙ্গলবার ২৭ অক্টোবর ২০২০, ১২ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৩:০৭ অপরাহ্ণ

শিরোনাম
মাষকলাই চাষিদের মাথায় হাত

পদ্মায় পানি বেড়ে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, ফসলের ক্ষতি

প্রকাশিত : ০৭:৩৬ AM, ২৩ সেপ্টেম্বর ২০১৯ Monday ২৪৮ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

কুষ্টিয়ার দৌলতপুরে পদ্মা নদীতে হঠাৎ পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় প্রায় আটশ’ হেক্টর জমির মাষকলাইয়ের ক্ষেত তলিয়ে গেছে। বিলম্বিত এ বন্যার কারণে ব্যাপক ক্ষতির মুখে পড়েছেন কৃষক। গত কয়েক দিনে পদ্মা নদীতে যেভাবে পানি বৃদ্ধি পেয়েছে, এই ধারা অব্যাহত থাকলে অচিরেই পানি লোকালয়ে ঢুকে পড়ার আশঙ্কা করছেন এলাকাবাসী।

সরেজমিনে কৃষকদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, পদ্মা নদীতে আকস্মিক পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় উপজেলার ফিলিপনগর, মরিচা, চিলমারী ও রামকৃষ্ণপুর- এই চার ইউনিয়নের মাষকলাইয়ের ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। চরাঞ্চলের মাঠগুলো এক সপ্তাহ আগেও যেখানে সবুজ ফসলে ভরপুর ছিল, কয়েক দিনের বন্যায় এখন সেখানে থইথই পানি। তলিয়ে গেছে প্রায় সব ফসল। তলিয়ে যাওয়া ফসলের অধিকাংশই মাষকলাইয়ের ক্ষেত। কিছু জমিতে রয়েছে বীজ পাট ও আমন ধান। সেগুলোও নষ্ট হয়ে যাওয়ার আশঙ্কা রয়েছে। বন্যার পানি বৃদ্ধির এ ধারা অব্যাহত থাকলে এখনও যেসব জমিতে পানি প্রবেশ করেনি, সেগুলোও তলিয়ে যেতে পারে।

স্থানীয় কৃষকরা জানান, প্রতিবছর পদ্মায় বন্যার পানি বৃদ্ধি পেলেও মাষকলাই চাষের আগেই পানি জমি থেকে নেমে যায়। ফলে চরাঞ্চলে তারা ব্যাপকভাবে মাষকলাইয়ের চাষ করে থাকেন। কিন্তু এ বছর তেমন বন্যা না হওয়ায় তারা ব্যাপকভাবে মাষকলাই চাষ করেছিলেন। হঠাৎ করেই পদ্মার পানি বেড়ে যাওয়ার ফলে কৃষকরা আর্থিক ক্ষতির মুখে পড়েছেন। কৃষকরা বলেন, এ বছর চরাঞ্চলের নিম্নাঞ্চলের বেশ কিছু জমিতে আউশ ধানের চারা রোপণ করা হয়েছিল। কিন্তু কিছুদিন আগে হঠাৎ বন্যায় জমি তলিয়ে যাওয়ায় ওই ধানও নষ্ট হয়ে যাওয়ায় তারা ক্ষতির মুখে পড়েছিলেন।

উপজেলা কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে, চলতি বছর দৌলতপুরে দুই হাজার ৫৫০ হেক্টর জমিতে মাষকলাই চাষের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হলেও চাষ হয়েছে আরও বেশি জমিতে। লক্ষ্যমাত্রার শতকরা ৬৫ ভাগ মাষকলাই চাষ হয় চরাঞ্চলের চার ইউনিয়নে। এ বছরও সেখানে ব্যাপকভাবে মাষকলাইয়ের আবাদ হয়েছে। গত তিন-চার দিনে পদ্মার পানি আকস্মিক বৃদ্ধিতে জমির ফসল তলিয়ে যাওয়ায় কৃষক কিছুটা ক্ষতির মুখে পড়বেন। সবচেয়ে বেশি ক্ষতি হয়েছে রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নে। রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নে প্রায় ৫০০ হেক্টরসহ অন্য তিন ইউনিয়ন মিলিয়ে মোট প্রায় ৭০০-৮০০ হেক্টর জমির মাষকলাই পানিতে তলিয়ে গেছে।

রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান সিরাজ মণ্ডল বলেন, পদ্মার পানি হঠাৎ বৃদ্ধির ফলে তার ইউনিয়নের তিন হাজারের অধিক কৃষক ফসল হারানোর পাশাপাশি তাদের মূলধনও হারাবেন।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা কামরুজ্জামান বলেন, গত তিন দিনে আকস্মিক পদ্মার পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় চরের নিম্নাঞ্চলের জমিগুলো তলিয়ে গেলেও ওপরের জমির আবাদ এখনও ভালো আছে। আর পানি বৃদ্ধি না হলে ক্ষতি পুষিয়ে নেওয়া যাবে। এখন মাষকলাইয়ের গাছের ভরা যৌবনকাল। কয়েক দিন পরেই গাছে ফুল ও ফল আসবে। কিন্তু অসময়ে পদ্মার পানি বৃদ্ধিতে এসব জমি তলিয়ে যাওয়ায় ফসলের কিছুটা ক্ষতি হবে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT