রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

সোমবার ০১ মার্চ ২০২১, ১৭ই ফাল্গুন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৭:২০ পূর্বাহ্ণ

নিয়ন্ত্রণে আসেনি পেঁয়াজের দাম

প্রকাশিত : ০৪:৫৯ AM, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ শনিবার ১৫৯ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

এখনও নিয়ন্ত্রণে আসেনি পেঁয়াজের বাজার। বাজারভেদে প্রতিকেজি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৮০-১০০ টাকায়। এছাড়া রসুনের দামও চড়া। এক কেজি রসুনের দাম ২০০ টাকায় ঠেকেছে। ৫০ টাকার নিচে মিলছে না কোনো সবজি। বাজারে ইলিশের সরবরাহ বেশি থাকায় দামও ক্রেতার নাগালে। তাছাড়া চাল, ডাল, চিনি এবং মসলার দাম স্থিতিশীল রয়েছে। শুক্রবার রাজধানীর বিভিন্ন বাজার ঘুরে এ চিত্র দেখা গেছে। রাজধানীর বেশ কয়েকটি বাজারে ঘুরে দেখা গেছে, টমেটো ৮০-১০০, গাজর ৬০-৮০ টাকা কেজি দরে খুচরা বিক্রি হচ্ছে। এ হিসাবে কিছুটা কমেছে এ সপ্তাহে। এক সপ্তাহ আগে টমেটো ছিল ৯০-১১০ টাকা কেজি। আর গাজর বিক্রি হয়েছিল ৭০-৮০ টাকায়। এছাড়া প্রতিকেজি পটোল ৪৫-৫০, ঝিঙা ৫০-৬০, করলা ও উচ্ছে ৬০-৭০, কাঁকরোল ৫৫-৬০, বেগুন ৭০-৮০, ঢেঁড়স ৫০-৫৫, শসা ৫০-৬০, কচুর ছড়া ৬০-৭০, কচুর লতি ৫০-৬০, পেঁপে ৪০-৪৫, প্রতি পিস বাঁধাকপি ৪০-৫০, ফুলকপি ৩৫-৪০, লাউ ৫০-৬০, জালি কুমড়া ৪০-৫০ টাকায় বিক্রি করতে দেখা গেছে। তবে অপরিবর্তিত রয়েছে শাকের দাম। প্রতি আঁটি লালশাক ৭-১০, মুলাশাক ১০-১৫, পালংশাক ১৫-২০, কুমড়াশাক ২০-৩০, লাউশাক ২৫-৩৫ এবং পুঁইশাক ১৫-২৫ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

পূজা উপলক্ষে ভারতে ৫০০ টন ইলিশ রফতানির সিদ্ধান্ত নিয়েছে সরকার। এরপরও ইলিশের বাজারে কোনো প্রভাব পড়েনি। বরং দাম কমেছে কিছুটা। এসব বাজারে এক কেজি ওজনের ইলিশ এক হাজার থেকে ১ হাজার ১০০ টাকার মধ্যে পাওয়া যাচ্ছে। ৯০০ গ্রাম ওজনের ইলিশ ৯০০ থেকে এক হাজার টাকায় মিলছে। এছাড়া আকারভেদে জাটকা বিক্রি করতে দেখা গেছে ৩০০-৪৫০ টাকার মধ্যে। কিছুটা দাম কমে বাজারে প্রতিকেজি রুই (আকারভেদে) ২০০-৩০০, মৃগেল ১৮০-২২০, তেলাপিয়া ১৩০-১৫০, পাঙাশ ১২০-১৫০, চিংড়ি হরিণা ৩৫০-৪৫০, বাগদা ৪৫০-৬০০, গলদা ৫০০ থেকে ১ হাজার, শিং ৩০০-৮০০ ও বাইন ৪০০-৮০০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে। বিভিন্ন দেশ থেকে আমদানি এবং টিসিবির ট্রাকসেলে খুচরা ৪৫ টাকা কেজি বিক্রি করা হলেও আবারও খুচরা বাজারে কেজিতে ১০ টাকা পর্যন্ত বেড়েছে পেঁয়াজের দর। দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ৮০-১০০ টাকা কেজি। ইন্ডিয়ান (মোটা) ৮০-৮৫ টাকায়। বিক্রেতারা বলছেন, পেঁয়াজের চাহিদার তুলনায় আমদানি এখনও পরিপূর্ণ হয়নি। পেঁয়াজের ঘাটতি রয়েছে। এজন্য দামও বেড়েছে।

কারওয়ান বাজারের খুচরা পেঁয়াজ বিক্রেতা আবুল কাশেম জানান, এক সপ্তাহ আগে হঠাৎ পাইকারি বাজারে পেঁয়াজের দাম কিছুটা কমে যায়। তখন আমরা দেশি পেঁয়াজ ৮০ টাকা কেজি বিক্রি করেছি। এখন আবার দাম বাড়তি। তবে বাজারে পর্যাপ্ত পেঁয়াজ এলে দাম কমে যাবে বলে জানান তিনি। এদিকে আগের দামেই বিক্রি হচ্ছে মুরগি। প্রতিকেজি বয়লার বিক্রি হচ্ছে ১৫০, লেয়ার (সাদা) ২২০-২৫০, লেয়ার (লাল) ২৫০-২৭০ টাকায়। গরুর মাংস বিক্রি হতে দেখা গেছে ৫৫০, খাসির ৭৫০-৭৮০, বকরি ৭০০-৭২০ টাকা কেজি দরে। এছাড়া অপরিবর্তিত রয়েছে চাল, ডাল ও ডিমের বাজার।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT