রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

বৃহস্পতিবার ২৯ অক্টোবর ২০২০, ১৪ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৪:১০ অপরাহ্ণ

ধ্বংসের পথে এক কাতার মসজিদ

প্রকাশিত : ০৭:২৪ AM, ৬ অক্টোবর ২০১৯ Sunday ১২৭ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

রংপুরের পীরগাছা সদরের চার কিলোমিটার পশ্চিমে পাকা সড়কের পাশেই চণ্ডিপুর গ্রাম। গ্রামটি ছিল ইংরেজ বিরোধী বিদ্রোহী পীর ফকির সন্ন্যাসীদের শক্তিশালী গোপন ঘাঁটি। আলাইকুমারী নদী থেকে দুটি সংযোগ খাল কেটে গোপন দূর্গ ভবনে সংযোগ দেওয়া হয়। এ সংযোগ খালে দেবী চৌধুরানীর নৌকার বহর রাখা হতো।

চণ্ডিপুরের গোপন দূর্গভবনে নবাব নুরউদ্দিন বাকের জং, ভবানী পাঠক, দেবী চৌধুরানী এবং শিবচন্দ্র রায় মাঝে মাঝে গোপন সভায় মিলিত হয়ে ইংরেজ বিরোধী সংগ্রামের রণকৌশল নির্ধারণ করতেন। ওখানে একটি মসজিদ ছিল। যা এক কাতার মসজিদ বলে পরিচিত। রক্ষণাবেক্ষণের অভাবে আজ ধ্বংসের দ্বারপ্রান্তে মসজিদটি।

নবাব নুরু উদ্দিন বাকের জং ও দেবী চৌধুরানীর গোপন দূর্গভবন থাকার কারণে চণ্ডিপুরের জঙ্গলাকীর্ণ এ স্থানটির নাম করা হয় পবিত্রকুটি বা পবিত্রঝাড়। চণ্ডিপুর, ফকিরটারী এবং কুটিপাড়া গ্রামে ছিল পীর, ফকির, সন্ন্যাসীদের বড় আস্তানা।

চণ্ডিপুর গ্রামের গোপন ঘাঁটিতে ১৭৮৩ সালের বৈশাখ মাসের প্রথম সপ্তাহে বিদ্রোহীদের গোপন আস্তানার সন্ধান পেয়ে আচমকা আক্রমণ শুরু করে ইংরেজ বাহিনী। পীরগাছার মন্থনার জমিদার জয়দূর্গা দেবী (দেবী চৌধুরানী) ইংরেজদের বিরুদ্ধে যুদ্ধ করে এখানে নিহত হন।

তার সঙ্গে নিহত হন ইটাকুমারীর জমিদার শিবচন্দ্র রায় এবং দেবী চৌধুরানীর ছোট ভাই কেষ্ট কিশোর চৌধুরীসহ অসংখ্য ফকির সন্ন্যাসী।

আস/এসআইসু

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT