রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

শুক্রবার ৩০ অক্টোবর ২০২০, ১৫ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

১০:৫৯ অপরাহ্ণ

শিরোনাম
◈ ভাষা সৈনিকের নাতি শুভ্র’র খুনীরা যতই শক্তিশালী হোক তারা রেহাই পাবে না…..গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ ◈ ২ টাকার খাবারের কার্যক্রম এবার ফুলবাড়ীয়া উপজেলায় ◈ রাজশাহীতে মানবাধিকার রক্ষাকারী নেটওয়ার্ক সভা ◈ রায়পু‌রে পুকু‌রে প‌ড়ে দুই শিশুর করুন মৃত‌্যু ◈ পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে কাতার প্রবাসীর সংবাদ সম্মেলন ◈ মহানবী (সাঃ)এর ব্যাঙ্গ চিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে,মধ্যনগরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত ◈ পত্নীতলায় আমণের বাম্পার ফলনের সম্ভাবনা ◈ ধামইরহাটে মজিবুর রহমান স্মৃতি গোল্ডকাপ ফুটবল প্রতিযোগিতার উদ্বোধন ◈ ঘাটাইলে ঝুকি নিয়ে চলছে এলপি গ্যাসের ব্যবসা ◈ বিশ্বনবী হযরত মুহাম্মদ (সাঃ)কে উদ্দেশ্য করে ব্যঙ্গচিত্র প্রদর্শন করার প্রতিবাদে বিক্ষোভ

ধানের চারার ভাসমান হাট

প্রকাশিত : ০৫:১৯ AM, ৯ অক্টোবর ২০১৯ Wednesday ১৬৮ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

dig

পিরোজপুরের কাউখালীতে জমে উঠেছে আমন ধানের চারার হাট। উপজেলার চিরাপাড়া নদীর ব্রিজের নিচে ভাসমান এ হাট প্রতি শুক্রবার ও সোমবার।

গত বছরের তুলনায় এবার আমন ধানের চারার দাম বেশি। তাই অনেকটা বাধ্য হয়েই বেশি দামে চারা কিনছেন কৃষকরা।

কাউখালী উপজেলাসহ পার্শ্ববর্তী এলাকায় এখন চলছে আমন ধান আবাদের মৌসুম। মাঠের পরিচর্যা করে চারা লাগাতে ব্যস্ত সময় পার করছেন কৃষকরা। মৌসুমের শুরুতে টানা বৃষ্টি, বৈরী আবহাওয়া ও বীজতলা ডুবে কৃষকদের অনেক ক্ষতি হয়েছে। তাই সময়মতো চারা উৎপাদন করতে পারেননি তারা। সব প্রতিকূলতা কাটিয়ে নতুন উদ্যোমে শুরু হয়েছে আমনের আবাদ। কৃষকরা আমন ধানের চারা কিনতে ছুটছেন কাউখালীর চারার হাটে।

উপজেলার বেশিরভাগ জমি অন্য এলাকার তুলনায় উঁচু ও নদী বেষ্টিত হওয়ায় এখানে জলাবদ্ধতা নেই। এ কারণে বীজতলাও নষ্ট হয় না। তাই অন্য এলাকার কৃষকরাও আমন ধানের চারার সংকট কাটাতে কাউখালীর হাটে আসেন।

কাউখালীর স্থানীয় আমনের চারা ভালো মানের ও বেশি লম্বা হওয়ায় অন্য এলাকার কৃষকরা ভিড় করেন এ হাটে। চারার হাট থেকে ভান্ডারিয়া, নাজিরপুর, নেছারাবাদ, রাজাপুর, ঝালকাঠি, পিরোজপুর উপজেলার কৃষক ও ব্যবসায়ীরা ধানের চারা কিনে নিয়ে যান। এই হাটে আমন ধানের চারা পোন (৮০ মুঠো) হিসেবে বিক্রি হয়। প্রতি পোন চারার মূল্য আটশ থেকে ১২শ টাকা।

নাজিরপুর উপজেলার শেখমাটিয়া ইউপির বুইচাকাঠী থেকে চারা কিনতে আসা মো. নিজাম হাওলাদার বলেন, আমন চাষের জন্য বীজতলা তৈরির বীজ-ধান সংগ্রহ করা, তা দিয়ে বীজতলা তৈরি করে চারা উৎপাদনে বেশ সময় লাগে। তাই কৃষকরা এই হাটে এসে প্রয়োজনীয় চারা কিনে নিয়ে জমিতে রোপণ করেন।

ঝালকাঠির রাজাপুর উপজেলার কৃষক মৃণাল কান্তি রায় বলেন, এখন ধানের জমি চাষ করতে শ্রমিক পাওয়া যায় না। আর পেলেও তাদের দৈনিক মজুরি ছয় থেকে সাতশ টাকা দিতে হয়। এত টাকা খরচ করে বীজতলা তৈরির চেয়ে চারা কিনে চাষাবাদ করলে খরচ অনেক কম হয়।

উপজেলা কৃষি কর্মকর্তা আলী আজিম শরীফ বলেন, এই এলাকার জমি একটু উঁচু ও নদী বেষ্টিত হওয়ায় পানি জমতে পারে না। তাই এখানকার কৃষকরা সময়মতো আমন ধানের চারার বীজতলা তৈরি করতে পারেন। কাউখালীর আমন ধানের চারা ভালো ও লম্বা হওয়ায় পোকামাকড়ের আক্রমণও কম হয়। তাই কৃষকদের কাউখালীর আমন ধানের চারার প্রতি আগ্রহ বেশি।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT