রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

রবিবার ০১ নভেম্বর ২০২০, ১৭ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৩:০১ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম
◈ মুরাদ নূরের সুরে কাজী শুভর ‘ইচ্ছে’ ◈ রাজশাহীর দুর্গাপুর উপজেলা বিএনপির আয়োজনে মত বিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ◈ ধর্মীয় ভাবগাম্ভীর্যের মধ্য দিয়ে বান্দরবানে পালিত হচ্ছে প্রবারণা পূর্ণিমা ◈ ফ্রান্সে বিশ্বনবীকে নিয়ে কটুত্তির প্রতিবাদে ভূঞাপুরে বিক্ষোভ মিছিল ◈ রায়পু‌রে ক‌মিউ‌নি‌টি পু‌লি‌শিং ডে-২০২০ উদযা‌পিত ◈ কাপাসিয়ায় কমিউনিটি পুলিশিং ডে উপলক্ষে মতবিনিময় সভা ◈ কটিয়াদীতে ট্রিপল মার্ডার : মা ভাইবোন সহ ৯ জনের নাম উল্লেখ করে মামলা দায়ের ◈ হরিরামপুরে চুরির অভিযোগে যুবককে পিটিয়ে জখম ◈ কমিউনিটি পুলিশিং ডে-২০২০ উপলক্ষে মধ্যনগর থানায় আলোচনা সভা অনুষ্ঠিত ◈ রাসুলকে (সাঃ)’র অপমানের প্রতিবাদে কাপাসিয়া কওমী পরিষদের বিক্ষোভ সমাবেশ

দৌলতপুরে হিসনা নদী দখলের কারনে বন্যায় ভাসছে বেশ কিছু গ্রাম

প্রকাশিত : ১১:৫১ PM, ২ অক্টোবর ২০১৯ Wednesday ১৬২ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

কুষ্টিয়া দৌলতপুর উপজেলা ও ভেড়ামারা উপজেলা হয়ে অবস্থিত হিসনা নদী। রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের পদ্ম থেকে উৎপত্তি হয়ে দৌলতপুর উপজেলা হয়ে ভেড়ামারা উপজেলা মাঝ দিয়ে বয়ে গেছে। কিন্তু বর্তমানে লিজ নেওয়ার নদী দখল করে পুকুরে পরিনত হওয়াতে নদী আর নদী নেই। এ বিষয়ে রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়ন বাসী জানান, হিসনা নদী দিয়ে বন্যার সময় পানি বের হয়ে চলে যেত কিন্তু বর্তমানে দখল করে বাঁধ দেওয়ার কারনে পানি ডুকতে পারছেনা ফলে রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের প্রায় ২ শত ঘর বাড়ী বন্যার পানিতে ডুবে যাচ্ছে। ফলে সৃষ্টি হয়েছে চরম দূর্ভগ। এ বিষয়ে রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়ন চেয়ারম্যান সিরাজ মন্ডল জানান, আমরা দেখেছি হিসনা নদী ছিল প্রানবন্ত নদী নৌকা চোলত ভেড়ামারা থেকে নৌকা যোগে লোকজন চলাচল করতো কিন্তু লিজ নেওয়ার নামে নদী দখল হয় গেছে। এবং দখলদাররা বাঁধ দিয়ে রেখেছে। পদ্মা নদী পানি বাড়ার ফলে ইউনিয়নের উচু কিছু এলাকায় পানি ডুকে পড়েছে। আগে দেখেছি এমন পানি ঢুকলে নেই পানি হিসনা নদী দিয়ে বের হয়ে গেছে কিন্তু বর্তমানে নদীর প্রবেশ মুখ বন্ধো থাকার কারনে প্রায় ২শত পরিবার পানি বদ্ধো হয়ে পড়েছে এবং বিভিন্ন রোগ ছড়াচ্ছে। তাই এলাকাবাসী ও আমার দাবি সরকার হিসনা নদীর মুখ খুলে দিয়ে সাধারন মানুষকে বাচাবেন। এ বিষয়ে কুষ্টিয়া জেলা পরিষদ সদস্য ও প্যানেল চেয়ারম্যান নাসির উদ্দিন জানান, হিসনা নদী দখলের ফলে রামকৃষ্ণপুর ইউনিয়নের কিছু এলাকা বছরে প্রায় ৪ মাস জলাবদ্ধ অবস্থাতে থাকে এবং বর্ষাকালীন সময়ের বিভিন্ন রোগ দেখাদেয় এলাকাতে তাই নদীটা খনোন করা অতি জোরুরী।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT