রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

শুক্রবার ০৩ এপ্রিল ২০২০, ২০শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

০৫:১৮ পূর্বাহ্ণ

দুই ব্রিজে ১৮ গ্রামের ভোগান্তি

প্রকাশিত : ০৩:৫২ AM, ৭ মার্চ ২০২০ Saturday ৪৯ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

বরগুনার আমতলী উপজেলার গাজীপুর সিনিয়র ফাজিল মাদ্রাসা সংলগ্ন গাজীপুর নদীর ওপর প্রায় ৬৬ মিটার দৈর্ঘ্য আয়রন ব্রিজ ভেঙে পড়েছে এবং একই ইউপির আঠারগাছিয়া ইউনিয়ন পরিষদ সংলগ্ন তাফালবাড়ীয়া নদীর উপর ৬৭.৬৬ নির্মিত ব্রিজ ৬ বছর পূর্বে ভেঙে যাওয়ায় আঠারগাছিয়া ইউনিয়নের ১৮ গ্রামের প্রায় লক্ষাধিক মানুষের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে।
স্থানীয় সূত্রে জানা গেছে, স্থানীয় সরকার প্রকৌশলী বিভাগ ২০০৫ সালে ৬৬ মিটার দৈর্ঘ্য আয়রন ব্রিজ নির্মাণ করায় আঠারগাছিয়া ইউপির আঠারগাছিয়া ইউনিয়নের পশ্চিম সোনাখালী, উত্তর সোনাখালী, আমতলা, গাজীপুর বাজার গ্রাম, কুকুয়া ইউপির কুকুয়া গ্রাম, হলদিয়া ইউপির রাওঘা গ্রাম, ও পার্শ্ববর্তী গলাচিপা উপজেলার গোলখালী ইউপির নলুয়াবগী হাজার মানুষের সড়ক যোগাযোগের পদক্ষেপ হয়। স্থানীয়রা জানান ব্রিজ নির্মাণের পরে তা রক্ষণাবেক্ষণের কোনো ব্যবস্থা নেয়া হয়নি। প্রতিদিন ইট, বালু ও চাল বোঝাই ট্রলি চলাচল করায় ব্রিজটি ক্রমশ দুর্বল হয়ে গত দুই বছর পূর্বে দেবে যায় মাঝখান। এখন তা ভেঙে নদীতে পড়ে যাওয়ার পথে। দেয় বছর পূর্বে জেলা প্রকৌশলীর কার্যালয়ে ব্রিজটি অধিক ঝুঁকিপূর্ণ সকল প্রকার যানবাহন চলাচল নিষেধ করে সাইন বোর্ডও টানিয়ে দেয়। এরপর আর কোনো খোঁজ নেয়নি সংশ্লিষ্ট বিভাগের। গাজীপুর সিনিয়র মাদ্রাসার ৬ষ্ঠ শ্রেণির ছাত্র রুবায়েত বলেন, তিন কিলোমিটার ঘুরে মাদ্রাসায় আসতে হয় অনেক কষ্ট করতে হয়।
গাজীপুর মাধ্যমিক বিদ্যালয়ের ৮ম শ্রেণির ছাত্রী ইসরাত বলেন, ব্রিজ ভেঙে যাওয়ায় এমনিতেই তিন কিলোমিটার ঘুরে আসতে হয়। তাও আবার বর্ষা মৌসুমে স্কুলে আসতে পারি না গাজীপুর বন্দরের পূর্ব মাথা জোয়ারের পানিতে তলিয়ে থাকে। কোনো ক্রমেই স্কুলে আসা সম্ভব নয়। এদিকে উপজেলার আঠারোগাছিয়া ইউনিয়নের সোনাখালী বাজার সংলগ্ন অপর একটি ব্রিজ ভেঙে যাওয়ার তিন বছরেও সংস্কার করা হয়নি। ভাঙা অংশে কাঠের পাটাতন দিয়ে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করছে স্কুল কলেজগামী ছাত্রছাত্রী ও সাধারণ মানুষ। সরজমিন ঘুরে দেখা গেছে, আয়রন ব্রিজের মাঝখানের অংশ ভাঙা অবস্থায় পড়ে আছে। স্থানীয় লোকজন ও যানবাহন ভাঙা অংশে কাঠের পাটাতন দিয়ে পারাপার হচ্ছে। স্থানীয়রা জানান, উপজেলার আঠারোগাছিয়া ইউনিয়নের সোনাখালী বাজারের আয়রন ব্রিজটি ২০০৭ সালে স্থানীয় প্রকৌশল বিভাগ নির্মাণ করে। নির্মাণের ৭ বছরের মাথায় ২০১৪ সালে একটি ট্রলি মালামাল নিয়ে যাওয়ার সময় ব্রিজের মাঝখানের অংশ ভেঙে পড়ে। এতে দুর্ভোগে পড়েছে ওই এলাকার ৩০ হাজার মানুষ।
ওই ব্রিজ দিয়ে সোনাখালী স্কুল এন্ড কলেজ, সোনাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, মধ্য সোনাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, গেরাবুনিয়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়, পূর্ব সোনাখালী সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ছাত্র-ছাত্রীদের পারাপার হয়ে বিদ্যালয়ে যেতে হয়।
স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যান মো. হারুন অর রশিদ জানান, ব্রিজ দুটি ভেঙে যাওয়ায় প্রায় লক্ষাধিক মানুষের যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন রয়েছে। বিষয়টি একাধিকবার স্থানীয় উপজেলা প্রকৌশলীকে জানানো হলেও কাজের কাজ কিছুই হচ্ছে না।
আমতলী উপজেলা প্রকৌশলী মো. আব্দুল্লাহ আল মামুন, ব্রিজ দুটির বর্তমান অবস্থার কথা স্বীকার করে বলেন, ওই স্থান দুটি গাডার ব্রিজ নির্মাণের পরিকল্পনা নেয়া হয়েছে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT