রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

সোমবার ১২ এপ্রিল ২০২১, ২৯শে চৈত্র, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

১০:২১ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম
◈ করোনার দ্বিতীয় টিকা নিলেন উপজেলা পরিষদের চেয়ারম্যান – মোফাজ্জল হোসেন খান ◈ কাভার্ডভ‌্যান চাপায় না.গ‌ঞ্জ সিআইডির কন‌স্টেবল নিহত ◈ নারায়ণগঞ্জে ভ্রাম্যমাণ গাড়িতে মিলছে দুধ ডিম মাংস ◈ ধামইরহাটে নর্থওয়েষ্ট ক্যাবল নেটওয়ার্কে তালা, ভোগান্তিতে স্যাটেলাইট গ্রাহকরা ◈ ধামইরহাটে ২য় ধাপের করোনা মোকাবিলায় তৎপর প্রশাসন করোনায় আক্রান্ত স্বাস্থ্য প্রশাসক ও মুক্তিযোদ্ধা আইসোলেশনে ◈ দ্বিতীয় ডোজ টিকা নিলেন  গৌরীপুরের গণমাধ্যমকর্মীরা ◈ ইউএনও’র মোবাইল নাম্বার ক্লোন করে বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে টাকা দাবি ! ◈ রাজারহাট উপজেলা ফায়ার সার্ভিস এন্ড সিভিল ডিফেন্স এর শুভ উদ্বোধন ◈ শ্রীনগরে বাড়ৈগাঁও-পশ্চিম নওপাড়া সড়কটি এখন মৃত্যুকুপ! ◈ তিতাসে গোমতী নদীর পাড় ও ডিম চরের মাটি যাচ্ছে ইট ভাটায়

দাউদকান্দিতে পরিত্যক্ত ভবনে ঝুঁকি নিয়ে চলছে পাঠদান

প্রকাশিত : ০৩:৫৫ AM, ২১ সেপ্টেম্বর ২০১৯ শনিবার ৩০৮ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

কুমিল্লার দাউদকান্দি উপজেলার বিভিন্ন এলাকার ২৮টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে পাঠদান চালিয়ে যাচ্ছেন। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তাসহ সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তারা বিভিন্ন সময় পরিদর্শনে গিয়ে এসব বিদ্যালয় অধিক ঝুঁকিপূর্ণ ও পরিত্যক্ত ঘোষণা করলেও নতুন ভবন নির্মিত না হওয়ায় শিক্ষকরা পরিত্যক্ত ভবনেই পাঠদান করছেন। এসব বিদ্যালয় ভবনের এমন অবস্থায় দিন দিন শিক্ষার্থীর সংখ্যা কমে যাচ্ছে বলেও সংশ্লিষ্ট বিদ্যালয় সূত্রে জানা গেছে।

জানা যায়, উপজেলার আটিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ১৯৩৫ সালে স্থাপিত। বর্তমানে এ বিদ্যালয়ে ১২৯ জন শিক্ষার্থী রয়েছে। ২০০৭-০৮ অর্থবছরে ১৫ লাখ ৩৩ হাজার টাকা ব্যয়ে দুই কক্ষের একটি পাকা ভবন নির্মাণ করা হয়। এর মধ্যে একটি কক্ষে শিশুশ্রেণির পাঠদান এবং একটি কক্ষে বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক, সহকারী শিক্ষকেরা বসে দাপ্তরিক কার্যক্রম পরিচালনা করেন। এ বিদ্যালয় সংলগ্ন অন্যের জায়গায় ১৯৯২ সালে নির্মিত তিন কক্ষের একটি পুরোনো টিনের চালায় কয়েকটি শ্রেণির পাঠদান চলছে।

সামান্য বৃষ্টিতে পানি চুইয়ে শিক্ষার্থীদের বইখাতা ভিজে যায়। বিদ্যালয়ের খেলার মাঠেও পানি জমে জলাবদ্ধতার সৃষ্টি হয়। প্রধান শিক্ষক নাসিমা আক্তার জানান, ‘উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা গত মে মাসে পরিদর্শনে এসে মৌখিকভাবে পুরোনো ভবনটি পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন। কিন্তু বিকল্প ব্যবস্থা না থাকায় অন্যের জায়গায় টিনের চালা নির্মাণ করে পাঠদান চালিয়ে যেতে হচ্ছে।’ এদিকে উপজেলার নৈয়াইর সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় নির্মাণ হয় ১৯৩৯ সালে। বিদ্যালয়ে শিক্ষার্থীর সংখ্যা ২৩৬ জন। প্রধান শিক্ষক তাহমিনা আক্তার জানান, ‘তিন বছর আগে উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তা পরিদর্শনে এসে বিদ্যালয়ের পুরোনো ভবনটি মৌখিকভাবে পরিত্যক্ত ঘোষণা করেন। কিন্তু শিক্ষকরা ঝুঁকি নিয়ে এ ভবনেই পাঠদান করছেন। ভবনের ছাদ থেকে পলেস্তারা খসে পড়ে এবং বৃষ্টি এলে ছাদ চুইয়ে পানি আর সুড়কি পড়ে। নতুন ভবন নির্মাণের জন্য উপজেলা শিক্ষা কর্মকর্তাকে তাগাদা দিয়ে যাচ্ছি, এতে কাজ হচ্ছে না।’ এছাড়া উপজেলার বারপাড়া পশ্চিম সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়ের ভবনের দুটি কক্ষ চার বছর আগে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়। এই অবস্থায় বিদ্যালয়ের বারান্দায় শিক্ষার্থীদের পাঠদান চলছে। বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক জানান, ‘১৯৮৬ সালে নির্মিত বিদ্যালয় ভবনের দুটি কক্ষ এলজিইডি কর্তৃক ২০১৪ সালের ১ জানুয়ারি পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়।

তাই বাধ্য হয়ে শিক্ষকরা বিদ্যালয়ের বারান্দায় দুটি শ্রেণির শিক্ষার্থীদের পাঠদান করছেন।’ উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা অফিস সূত্রে জানা যায়, এ উপজেলায় ১৪৯টি সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় রয়েছে। এর মধ্যে ডাকখোলা, হাটখোলা, মোহাম্মদপুর দক্ষিণ, তিনপাড়া, নৈয়ার, চক্রতলা, নোয়াগাঁও, দৈয়াপাড়া, ওলানপাড়া, খোশকান্দি, চাঁদগাঁও, বারপাড়া পশ্চিম, খানেবাড়ী, হাসনাবাদ কান্দারগাঁও, নন্দনপুর, জাফরাবাদ, দৌলতপুর, ভবানীপুর, উজিয়ারা, নয়ানগর ও আটিপাড়া সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় অধিক ঝুঁকিপূর্ণ ভবন হিসেবে এবং মারুকা পূর্ব, কল্যাণপুর, টামটা, চশই, চরগোয়ালী, রাঙ্গাশিমুলিয়া ও তিনচিটা সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয় ঝুঁকিপূর্ণ ভবন হিসেবে পরিত্যক্ত ঘোষণা করা হয়েছে। উপজেলা প্রাথমিক শিক্ষা কর্মকর্তা মো. নুরুল ইসলাম জানান, কয়েক মাস পরপরই প্রাথমিক শিক্ষা অধিদপ্তর ও শিক্ষা মন্ত্রণালয়ে এসব ঝুঁকিপূর্ণ বিদ্যালয় ভবনের তালিকা প্রেরণ করে আসছি, বরাদ্দ পাওয়া গেলে পরিত্যক্ত ভবনগুলো নির্মাণ করা হবে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT