রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

সোমবার ১৭ মে ২০২১, ৩রা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

০৪:২৩ অপরাহ্ণ

শিরোনাম
◈ ঈদ প্রীতি ফুটবল ম্যাচ,বড় দল বনাম ছোট দল, বিশেষ আকর্ষণ দেশের দ্রুত তম মানব ইসমাইল ◈ বিরলে শেখ হাসিনা’র স্বদেশ-প্রত্যাবর্তন দিবস উপলক্ষে যুবলীগের দোয়া ও খাদ্য বিতরণ ◈ বুড়িচং উপজেলা মুক্তিযোদ্ধা সংসদ সন্তান কমান্ডের মতবিনিময় সভা অনষ্ঠিত ◈ মতিন খসরু’র স্মরণ সভা ও পূর্ণমিলনী অনুষ্ঠিত ◈ স্ত্রী কানিজ ফাতিমা হত্যায় আটক সেনা সদস্য স্বামী রাকিবুলের ফাঁসির দাবিতে মানববন্ধন ◈ বাঁশখালীতে বেড়াতে আসা তরুণীকে ধর্ষণ করে আবারো আলোচনায় সেই নূরু ◈ ছাগলনাইয়া থানার অফিসার ইনচার্জ মেজবাহ্ উদ্দিন আহমেদ এর বিদায় সংবর্ধনা ◈ বাঁশখালীতে অবৈধভাবে বালি উত্তোলন করায় ড্রেজার মেশিন জব্দ ◈ বাঁশখালী সাধনপুরে কাঁদায় দৌড় প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ◈ নবীনগর বিটঘরে কাল বৈশাখীর ঝড়ে গাছের ডাল পড়ে বৃদ্ধের মৃত্যু
ঢাকার সিটি নির্বাচন

দলীয় প্রার্থিতা নিয়ে আ’লীগে অভ্যন্তরীণ কোন্দল বাড়ছে

প্রকাশিত : ০৫:৪২ AM, ২৬ নভেম্বর ২০১৯ মঙ্গলবার ১৫২ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

আসন্ন সিটি নির্বাচনে ঢাকা উত্তর সিটি করপোরেশনের ২৩ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর পদে দলীয় প্রার্থিতা পেতে রামপুরা থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি কামরুজ্জামান বাদল বেশ আগে থেকেই দলের ওপরমহলে তদবির করে আসছেন। খুব শিগগিরই সেখান থেকে এ ব্যাপারে গ্রিন সিগন্যাল পাবেন বলে তিনি আশাবাদী। অথচ একই পদে দলীয় সমর্থন পেতে ২৩ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক শওকত হোসেন ও সাংগঠনিক সম্পাদক ফুয়াদ বাশার জোর তৎপরতা চালাচ্ছেন। এদিকে গত সিটি নির্বাচনে আওয়ামী লীগের বিদ্রোহী প্রার্থী হিসেবে ভোটে অংশ নিয়ে কাউন্সিলর নির্বাচিত হওয়া থানা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক মোস্তাক আহম্মেদ এবার দলীয় প্রার্থিতা আদায়ে আগে থেকেই তৎপর। সব মিলিয়ে একই পদে দলীয় প্রার্থিতা পাওয়া নিয়ে স্থানীয় পর্যায়ের চার গুরুত্বপূর্ণ নেতা মরিয়া হয়ে ওঠায় দলের অভ্যন্তরীণ বিভেদ-কোন্দল জোরালো রূপ নিয়েছে।

একইভাবে দলীয় প্রার্থী হিসেবে সমর্থন আদায়ে ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের ২ নং ওয়ার্ডের বর্তমান কাউন্সিলর সাবেক ছাত্রলীগ নেতা আনিসুর রহমান, ঢাকা মহানগর দক্ষিণ আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি আলমগীর চৌধুরী, ২ নং ওয়ার্ড সভাপতি শাহবুদ্দিন মজুমদার ও সাধারণ সম্পাদক আব্দুর রাজ্জাক রুবেল এখন মুখোমুখি। তারা সবাই নিজ নিজ ঘনিষ্ঠ সহযোগীদের নিয়ে আগেভাগেই ভোটের মাঠ দখলের পাশাপাশি স্থানীয় আধিপত্য বিস্তারে তৎপর হয়ে উঠেছেন। এ নিয়ে সেখানকার স্থানীয় নেতাকর্মীরা একাধিক গ্রম্নপে বিভক্ত হয়ে পড়েছেন। এর জের ধরে সেখানে তুচ্ছ বিষয় নিয়ে নিজেদের মধ্যে নানা কোন্দল সৃষ্টি হচ্ছে।

শুধু এই দুই ওয়ার্ডই নয়, কাউন্সিলর পদে দলীয় প্রার্থিতা পাওয়া নিয়ে গোটা ঢাকার ১২৯টি ওয়ার্ডেই ক্ষমতাসীন দল আওয়ামী লীগের অভ্যন্তরীণ চাপা কোন্দল ক্রমেই প্রকাশ্য রূপ নিচ্ছে। স্বল্প সময়ের মধ্যে তা রক্তক্ষয়ী সংঘাত-সহিংসতায় রূপ নিতে পারে; যা সামাল দেওয়া দলীয় হাইকমান্ডের পক্ষে কঠিন হয়ে দাঁড়াবে বলে স্থানীয় সূত্র ও গোয়েন্দারা সরকারকে অবহিত করেছে। তাই প্রার্থিতা নিশ্চিত করতে গিয়ে নেতাকর্মীরা যাতে নিজেদের মধ্যে সংঘাতে না জড়িয়ে পড়েন সে বিষয়ে আগে থেকেই সাবধানতা অবলম্বন করতে চান দলীয় হাইকমান্ড। এর কৌশল হিসেবে ঢাকা সিটি করপোরেশন নির্বাচনে ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদ উন্মুক্ত রাখার বিষয়টি বিবেচনায় রাখা হচ্ছে বলে খবর পাওয়া গেছে।

তবে দলের নীতি-নির্ধারক পর্যায়ের একটি নির্ভরযোগ্য সূত্র জানায়, এ ধরনের ছক আগে তৈরি করা হলেও আপাতত সে পথে এগোনোর তেমন সম্ভাবনা নেই। কেননা শুদ্ধি অভিযান শুরুর পর দলের নেতাকর্মীদের একটি বড় অংশ কিছুটা আড়ালে রয়েছেন। যারা এলাকায় অবস্থান করছেন, তারাও অনেকে নিষ্ক্রিয়। অন্যদিকে ক্যাসিনো-মাদক ও নানা ধরনের দুর্নীতিতে সম্পৃক্ত বিতর্কিত কিছু নেতা দলে বিশৃঙ্খলা সৃষ্টির গোপন পাঁয়তারা করছেন। এ পরিস্থিতিতে কাউন্সিলর পদের প্রার্থিতা উন্মুক্ত করে দেওয়া হলে দলীয় ভোট একাধিক ভাগ হবে। এতে বিরোধী দলগুলোর বিপুলসংখ্যক প্রার্থী বড় ধরনের ভোটের ব্যবধানে বিজয়ী হওয়ার সুযোগ পাবে। যে ঝুঁকি নেওয়া এ সময় দলের জন্য ঠিক হবে না বলে দলীয় হাইকমান্ড মনে করছে। তাই অভ্যন্তরীণ কোন্দল এড়িয়ে কীভাবে কাউন্সিলর পদে দলের একক প্রার্থী নির্বাচন করা যায় সে পথ খুঁজে দেখা হচ্ছে।

সংশ্লিষ্টরা জানান, চলতি মেয়াদে ক্ষমতাসীন দলীয় যেসব কাউন্সিলর তাদের ওপর অর্পিত দায়িত্ব পালনের মধ্য দিয়ে স্থানীয় ভোটারদের পূর্ণ আস্থা অর্জন করেছেন, যাদের বিরুদ্ধে অপরাধ-দুর্নীতির অভিযোগ নেই এবং যারা দলের নেতাকর্মীদের ঐক্যবদ্ধ রাখতে সক্ষম হয়েছেন তাদের আগামী নির্বাচনে দলীয় সমর্থন দেওয়া যায় কি না তা বিবেচনা করছে হাইকমান্ড। এরই ধারাবাহিকতায় ইতিমধ্যে দলটির শীর্ষ কয়েকজন নেতা যোগ্য প্রার্থী বাছাইয়ে মাঠ জরিপ শুরু করেছেন। চলছে চলতি টার্মের কাউন্সিলরদের অবস্থান নিয়ে গোয়েন্দা প্রতিবেদনের চুলচেরা বিশ্লেষণ-পর্যবেক্ষণ।

আওয়ামী লীগের প্রথম সারির একজন নেতা জানান, আগামী জাতীয় সংসদ নির্বাচনে ঢাকার মেয়র ও কাউন্সিলরদের বড়ো ভূমিকা থাকবে। তাই ওই নির্বাচনের আগে তারা ঢাকার প্রতিটি ওয়ার্ডে সংগঠনকে আরও শক্তিশালী করতে চান। এ কারণে দলের অভ্যন্তরীণ বিভেদ না বাড়িয়ে কীভাবে ঢাকার কর্তৃত্ব ধরে রাখা যায় সে বিষয়টি দলীয় হাইকমান্ড গুরুত্বের সঙ্গে খতিয়ে দেখছে।

তবে ক্ষমতাসীন দলের নীতি-নির্ধারকরা এ নিয়ে নানা ছক এঁটে তা বাস্তবায়নে মাঠে নামার তোড়জোর অব্যাহত রাখলেও এরই মধ্যে ঢাকার অন্তত অর্ধ শতাধিক ওয়ার্ডে নেতাকর্মীদের মধ্যকার বিভেদ-কোন্দল প্রকাশ্য রূপ নিয়েছে বলে স্থানীয় সূত্রগুলো নিশ্চিত করেছে।

জানা গেছে, ঢাকা দক্ষিণ সিটি করপোরেশনের (ডিএসসিসি) ৩ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে দলীয় প্রার্থিতা পেতে থানা আওয়ামী লীগের যুগ্ম সাধারণ সম্পাদক মঈনউদ্দিন মিলন, ওয়ার্ড সভাপতি হাজী শাহ আলম, ওয়ার্ড সাধারণ সম্পাদক আওরঙ্গজেব মিঠু এবং বর্তমান কাউন্সিলর মকসুদ হোসেন মুহাসীন মুখোমুখি। তাঁরা নিজেদের ঘনিষ্ঠ সহযোগী নিয়ে আলাদা গ্রম্নপ করে ভোটের মাঠ দখলের আগাম তৎপরতা চালাচ্ছেন। তারা একপক্ষ অপরপক্ষের অপরাধ-দুর্নীতির বিভিন্ন তথ্য কৌশলে চাউর করছেন। এ নিয়ে বেশকিছু ধরে সেখানে টানটান উত্তেজনা বিরাজ করছে। যে কোনো মুহূর্তে তা সংঘাত-সংঘর্ষে রূপ নিতে পারে বলে স্থানীয় অনেকেই জোরালো আশঙ্কা করছেন।

এদিকে দলীয় কোন্দলের কারণে গত নির্বাচনে ডিএসসিসির ৪ নং ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগ সমর্থিত কাউন্সিলর প্রার্থী বিপুল ভোটে পরাজিত হলেও এবারও সেখানে একই অবস্থা সৃষ্টি হয়েছে। সবুজবাগ থানা আওয়ামী লীগের সহ-সাধারণ সম্পাদক লুৎফুর রহমানের সঙ্গে পালস্না দিয়ে ৪ নং ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি মাকসুদুর রহমান শামীম ও সাধারণ সম্পাদক জাহাঙ্গীর হোসেন ভোটের মাঠ দখলে তৎপর হয়ে উঠেছেন। অন্যদিকে সবুজবাগ থানা আওয়ামী লীগের সাবেক ভারপ্রাপ্ত সভাপতি আলতাফ হোসেন এবং আওয়ামী লীগ নেতা গোলাম মোস্তফাও তাদের সহযোগীদের নিয়ে এ প্রতিযোগিতায় জোরালো অংশ নিয়েছেন। সব মিলিয়ে সেখানকার দলীয় বিভেদ আগের চেয়ে তীব্র আকার ধারণ করেছে বলে স্থানীয়দের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে।

এদিকে ডিএসসিসির ৫ নম্বর ওয়ার্ডের অবস্থা আরও ভয়াবহ। সেখানে থানা আওয়ামী লীগের সভাপতি, বর্তমান কাউন্সিলর আশরাফুজ্জামান ফরিদের বিরুদ্ধে নানা অপরাধে সম্পৃক্ততার অভিযোগ থাকায় তার দলীয় প্রার্থিতা পাওয়ার বিষয়টি অনেকটা অনিশ্চিত হওয়ার সুযোগে একই কমিটির সাধারণ সম্পাদক লায়ন চিত্ত রঞ্জন দাশ নানামুখী লবিং-তদবির করে তাঁর দলীয় প্রার্থিতা পাওয়ার বিষয়টি অনেকটা এগিয়ে নিয়েছেন। তবে তাকে ঠেকিয়ে নিজের পক্ষে দলীয় সমর্থন বাগিয়ে নিতে ৫ নম্বর ওয়ার্ড আওয়ামী লীগের সভাপতি তানিয়া হোসেন এবং স্থানীয় আওয়ামী লীগ নেতা ইসমত তাকির দুইজনই জোরালো তৎপরতা চালাচ্ছেন। এ নিয়ে সেখানকার নেতাকর্মীদের মধ্যেও একাধিক গ্রম্নপ সৃষ্টি হয়েছে। যারা সবাই নিজ নিজ আধিপত্য বিস্তারে মারিয়া হয়ে উঠেছেন। এ নিয়ে ৫ নম্বর ওয়ার্ডে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যকার সম্পর্ক এখন ‘সাপ-নেউলে’ হয়ে দাঁড়িয়েছে বলে অনেকে অভিযোগ করেছেন।

মাঠপর্যায়ের গোয়েন্দারা জানান, ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে দলীয় প্রার্থিতা পাওয়া এবং ভোটের মাঠ দখল নিয়ে আওয়ামী লীগের নেতাকর্মীদের মধ্যকার সংঘাত-সংঘর্ষে আগ্নেয়াস্ত্রের ব্যবহার হওয়ারও জোরালো আশঙ্কা রয়েছে। এরইমধ্যে কেউ কেউ দলে একাধিক অবৈধ অস্ত্রধারী ক্যাডার ও বোমাবাজদের ভিড়িয়েছেন বলেও গোয়েন্দারা তথ্য পেয়েছে।

বিষয়টি স্বীকার করে আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর একাধিক ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তা বলেন, নির্বাচনের আগে সংঘাত-সংঘর্ষের কিছু ঘটনা ঘটবে- এমন আশঙ্কা বরাবরই থাকে। তবে তা নিয়ন্ত্রণে রাখতে বিগত সময়ের চেয়ে পুলিশ এখন আরও বেশি তৎপর। ঢাকার দুই সিটি নির্বাচনের তফসিল ঘোষণার পরপরই অবৈধ অস্ত্র উদ্ধার এবং চিহ্নিত সন্ত্রাসীদের গ্রেপ্তারে বিশেষ অভিযান চালানো হবে। আইনশৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর জোরালো তৎপরতার মুখে অবৈধ অস্ত্রধারী ক্যাডার কিংবা বোমাবাজ সন্ত্রাসী মাথাচাড়া দিয়ে ওঠা দূরে থাক, তারা দৌড়ে কূল পাবে না- যোগ করেন ওই দায়িত্বশীল কর্মকর্তা।

একই ধরনের অভিব্যক্তি প্রকাশ করে আওয়ামী লীগের প্রথম সারির একজন নেতা এ প্রতিবেদককে বলেন, কাউন্সিলর পদের প্রার্থিতা নিয়ে কিংবা ভোটের প্রচার-প্রচারণা চালাতে গিয়ে দলের অভ্যন্তরীণ কোন্দল যাতে চাঙা হয়ে না ওঠে সেদিকে দলীয় হাইকমান্ড তীক্ষ্ণ দৃষ্টি রাখবে। প্রয়োজনে এ ব্যাপারে তারা সরাসরি হস্তক্ষেপ করবে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT