রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

শনিবার ৩০ মে ২০২০, ১৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৫:৫৯ অপরাহ্ণ

শিরোনাম
◈ চরফ্যাশনে ফুটবলে হেড দিতে গিয়ে গুরুতর অাহত ১ ◈ টেকনাফে র‍্যাবের অভিযানে রোহিঙ্গা অস্ত্র ব্যবসায়ী আটক ◈ নোয়াখালীতে করোনায় মৃত্যু ২ , চব্বিশ ঘন্টায় সর্বোচ্চ আক্রান্ত ৯৬ ◈ সোনাইমুড়ীতে অভিযান চালিয়ে অস্ত্রসহ দুইজন গ্রেপ্তার ◈ ২৪ ঘন্টা না পেরুতেই নীলফামারীতে মিনা হত্যা মামলার ৩ আসামী গ্রেফতার ◈ দাকোপ ও পাইকগাছায় আম্পানে ক্ষতিগ্রস্ত এলাকা পরিদর্শনে পানি সম্পদ প্রতিমন্ত্রী ◈ রায়পুরে ফিস হ্যাচারীর টেন্ডারে অনিয়ম, খৈল-ভূষি কেজি ১৫ টাকা ধরে নির্ধারণ ! ◈ মহেশপুরে শিশুকে হত্যার পর মায়ের আত্মহত্যা ◈ দেশে ফিরতে পারছেন না বেনাপোলে আটকে পড়া ১৯ ভারতীয় ট্রাকচালক ◈ লালমনিরহাটে ধরলার ভাঙনে ছোট হচ্ছে মোগলহাট ইউনিয়ন

তবু সেবায় অনড় ‘যোদ্ধা পুলিশ’

প্রকাশিত : ০৪:৪৫ PM, ৩ মে ২০২০ Sunday ১২ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

বিশ্বজুড়ে ছড়িয়ে পড়া করোনাভাইরাস মোকাবেলায় সবার আগে মাঠে নামে পুলিশ। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখা ও নিরাপত্তার বিভিন্ন কার্যক্রমে অংশ নেওয়ার পাশাপাশি সংকটকালে নাগরিকদের পাশে থেকে মানবিক সহায়তা দিয়ে যাচ্ছেন এই বাহিনীর ‘যোদ্ধা’ সদস্যরা। ত্রাণসামগ্রী বিতরণ, অসুস্থ রোগীকে হাসপাতালে নেওয়া, করোনা আক্রান্ত ব্যক্তির পরিবার ও প্রতিবেশীর সুরক্ষায় কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত করা, এমনকি মারা যাওয়া ব্যক্তির লাশ দাফনও করছে পুলিশ। দরিদ্র ও অসহায় মধ্যবিত্তের ঘরে খাবারও পৌঁছে দিচ্ছে পুলিশ। এমন মানবিকতার হাত বাড়িয়ে পেশাদারি কাজ করায় এরই মধ্যে পুলিশ বাহিনীর সদস্যরা দেশের মানুষের প্রশংসাও কুড়িয়েছেন।

এই ঝুঁকিপূর্ণ কাজ করতে গিয়ে এরই মধ্যে করোনায় আক্রান্ত হয়েছেন পুলিশের ৮৫৪ সদস্য। দিন দিন বাড়ছে সংক্রমণের হার। গতকাল রবিবার পর্যন্ত মারা গেছেন পাঁচ ‘যোদ্ধা পুলিশ’। তাঁরা হলেন এসআই নাজির উদ্দীন, এসআই সুলতানুল আরেফিন, এএসআই আব্দুল খালেক, কনস্টেবল আশেক মাহমুদ ও কনস্টেবল জসিম উদ্দিন। তবে পুলিশের দায়িত্বশীল কর্মকর্তারা বলছেন, এতে বিচলিত নন দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ পুলিশ সদস্যরা। বরং সহকর্মীদের মৃত্যুশোককে শক্তিতে পরিণত করে কাজ করে যাচ্ছেন তাঁরা। পাশাপাশি নাগরিকদের সেবা দেওয়ার ক্ষেত্রে পুলিশ সদস্যদের সুরক্ষায় সচেতনতা বাড়ানো হয়েছে।

ওই সূত্র জানায়, রবিবার পর্যন্ত যে ৮৫৪ জন আক্রান্ত হয়েছেন, এর মধ্যে ঢাকা মহানগর পুলিশের সদস্য রয়েছেন ৪৪৯ জন। আক্রান্তদের মধ্যে শনিবার (২ মে) সকাল পর্যন্ত মারা গেছেন পাঁচ পুলিশ সদস্য। সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরেছেন ৫৭ জন। আইসোলেশনে আছেন ৩১৫ জন। কোয়ারেন্টিনে আছেন এক হাজার ২৫০ জন। গত ২৪ ঘণ্টায় নতুন করে কেউ সুস্থ হননি।

দায়িত্ব গ্রহণের পর পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) ড. বেনজীর আহমেদ সদস্যদের উদ্দেশে বলেছিলেন, সব সময়ের মতোই জাতির এই বিপদের সময় পুলিশ সর্বোচ্চ পেশাদারির সঙ্গে জনগণের সুরক্ষায় কাজ করবে। পুলিশের যেসব সদস্য আক্রান্ত হচ্ছেন, তাঁদের চিকিৎসা ও পরিবারের সুরক্ষায় সব ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

সংশ্লিষ্টরা বলছেন, করোনা সংকটের প্রথম থেকেই বিদেশফেরতদের অবস্থান শনাক্ত করে কোয়ারেন্টিন নিশ্চিত, আক্রান্ত ব্যক্তিদের হাসপাতালে পাঠানো, লকডাউন নিশ্চিত করা, ত্রাণ বিতরণ, শারীরিক দূরত্ব নিশ্চিত থেকে শুরু করে করোনায় মারা যাওয়া ব্যক্তিদের দাফনসহ প্রায় সব ক্ষেত্রেই পুলিশ সদস্যরা দায়িত্ব পালন করছেন। ভাইরাসের সংক্রমণ ঠেকাতে নানা কার্যক্রমের জন্য পুলিশ সদস্যদের সরাসরি জনসাধারণ এবং আক্রান্ত রোগীদের সংস্পর্শে আসার সুযোগ তৈরি হচ্ছে। ফলে নিজেদের মধ্যেও করোনায় আক্রান্তের সংখ্যা বাড়ছে। এর পরও বাকিরা জীবনের ঝুঁকি নিয়েই মানুষকে বাঁচাতে সেবা দিয়ে যাচ্ছেন নিরলস। নিজেরা সংক্রমিত হওয়ার ভয়, পরিবার পরিজনের পিছুটান উপেক্ষা করে মানুষের জন্য কাজ করে চলেছেন। তবে শুরুতে পুলিশের মধ্যে সুরক্ষা সরঞ্জামের অভাব থাকলেও তা এখন অনেকটাই কমে গেছে।

এদিকে করোনা সংক্রমণের এ দুঃসময়ে পুলিশের পুরো কাজের ধরন পাল্টেছে। আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় তেমন ব্যস্ততা না থাকায় করছেন নানা ধরনের সামাজিক কাজ। বিশেষ করে অসহায় মানুষের ত্রাণ সহায়তায় কাজ করছেন তাঁরা। তবে পুলিশ বাহিনীর মনোবল বাড়াতে চেষ্টা চালাচ্ছে সরকার।

পুলিশ সদর দপ্তরের সহকারী মহাপরিদর্শক (মিডিয়া) সোহেল রানা বলেন, ‘করোনাযুদ্ধে আমাদের পাঁচ সদস্য মারা গেলেও দমে যাইনি আমরা। আমাদের সদস্যরা মাঠপর্যায়ে মানুষের পাশে থেকে দায়িত্ব পালন করে চলেছেন। মানুষকে সেবা দিয়ে চলেছে। দেশপ্রেমে উদ্বুদ্ধ হয়ে পুলিশের প্রতিটি সদস্য সামাজিক নিরাপত্তা বজায় রাখাসহ সব ধরনের কাজ করছেন।’

ডিএমপির উপকমিশনার (মিডিয়া) মাসুদুর রহমান বলেন, ‘নাগরিকদের নিরাপত্তায় কাজ করতে গিয়ে যেসব পুলিশ সদস্য আক্রান্ত হয়েছেন তাদের চিকিৎসা এবং অন্যদের সুরক্ষায় পদক্ষেপ নেওয়া হয়েছে।’

পুলিশের সাবেক আইজি শহীদুল হক বলেন, ‘এই পরিস্থিতিতে পুলিশ সব সময়ই ঝুঁকি নিয়ে মানুষের পাশে রয়েছে। তবে সুরক্ষা সামগ্রী এবং সেবাদানে বিভিন্ন কৌশলগত সুবিধা না থাকলে নিজেরাই আক্রান্ত হতে পারে। সে ক্ষেত্রে সেবাদান কার্যক্রম ব্যাহত হতে পারে। তাই সুরক্ষা সামগ্রীসহ তাদের মনোবল বাড়াতে সব ধরনের পদক্ষেপ নিতে হবে।’

সাব-ইন্সপেক্টরের মৃত্যু : দায়িত্ব পালনকালে করোনাক্রান্ত (কভিড-১৯) হয়ে মারা গেছেন সুলতানুল আরেফিন (৪৪) নামের এক সাব-ইন্সপেক্টর (এসআই)। তিনি ঢাকা মেট্রোপলিটন পুলিশের পাবলিক অর্ডার ম্যানেজমেন্ট (পিওএম) পশ্চিম বিভাগে কর্মরত ছিলেন।

সুলতানুল আরেফিনের মৃত্যুতে পুলিশ সদর দপ্তর থেকে শোক প্রকাশ করা হয়ছে। পুলিশ সদর দপ্তরের এআইজি (মিডিয়া) সোহেল রানা বলেন, প্রত্যেকের বিদেহী আত্মার মাগফিরাত কামনা করছি। সশ্রদ্ধ চিত্তে স্মরণ করছি দেশ ও জাতির জন্য তাঁদের অবদানকে।

সুলতানুল আরেফিনের করোনাভাইরাস ধরা পড়ার পর তিনি রাজারবাগ কেন্দ্রীয় পুলিশ হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলেন। শারীরিক অবস্থার অবনতি হলে তাঁকে নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (আইসিইউ) স্থানান্তর করা হয়। গতকাল শনিবার ভোরে তিনি মৃত্যুবরণ করেন।

তাঁর গ্রামের বাড়ি জামালপুর জেলায়। তিনি স্ত্রী, দুই কন্যা ও এক পুত্রসহ বহু আত্মীয়-স্বজন ও গুণগ্রাহী রেখে গেছেন। পুলিশের ব্যবস্থাপনায় মরদেহ মরহুমের গ্রামের বাড়িতে পাঠানো হয়েছে। সেখানে জেলা পুলিশের ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তাদের উপস্থিতিতে জানাজা অনুষ্ঠিত হবে। পরে ধর্মীয় বিধান অনুযায়ী পারিবারিক কবরস্থানে মরদেহ দাফন করা হবে।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT