রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

সোমবার ১৪ জুন ২০২১, ৩১শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

০৩:০৭ অপরাহ্ণ

জন্মদান-পরবর্তী মানসিক সমস্যায় করণীয়

প্রকাশিত : ০৭:৩১ AM, ৭ অক্টোবর ২০১৯ সোমবার ২৯৫ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

ডা. শিফফিন রিজভী,প্রসূতি ও স্ত্রীরোগ বিশেষজ্ঞ

মৌরি (ছদ্মনাম)। বয়স ১৮ বছর। ১ বছর আগে বিয়ে হয়েছে। বিয়ের প্রথম মাসেই গর্ভবতী হন। ৩২ সপ্তাহে এসে পানি ভেঙে (চৎবঃবৎস চজঙগ) যাওয়ায় অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে অপরিণত একটি শিশুর জন্ম দেন। সেই শিশু নিবিড় পরিচর্যা কেন্দ্রে (ঘওঈট) ভর্তি ছিলেন অনেক দিন।

সন্তান জন্মদানের পর হরমোনাল ভারসাম্যহীনতার কারণে এমন হতে পারে। কিন্তু রোগীর কিছু রিস্ক ফ্যাক্টর, যেমন অতীতে যদি মানসিক সমস্যার ঘটনা থাকে, যদি পরের বার কোনো মানসিক রোগী হয়ে থাকেন, দাম্পত্য কলহ, সিজারিয়ান ডেলিভারি, সন্তানের কোনো সমস্যা অথবা পরিবারের প্রত্যাশামতো যদি ছেলে বা মেয়েশিশু জন্ম না নেয়।

জন্মদান-পরবর্তী মানসিক সমস্যার তীব্রতা নানা মাত্রায় হতে পারে। যেমন ব্লুস (ইষঁবং) বিষণœতা (উবঢ়ৎবংংরড়হ), সিজোফ্রেনিয়া, পোস্টপার্টাম (গর্ভ পরবর্তী) ব্লুস (ইষঁবং) এবং বিষণœতায় রোগীর হতাশা, দুশ্চিন্তা, অনিদ্রা, অসহায়বোধ, অল্পতেই কান্নাকাটি করা, খাবারে অরুচি, দুর্বলতা, অস্থিরতা, অল্পতেই রেগে যাওয়া, নবজাতকের প্রতি বিতৃষ্ণা ইত্যাদি হতে পারে।

স্বল্পমাত্রার মানসিক সমস্যায় করণীয় : রোগীকে আশ্বস্ত করতে হবে। তাকে সহযোগিতা করতে হবে। সন্তানকে সময় দেওয়ার পাশাপাশি মাকেও গুরুত্ব ও সময় দিতে হবে, যেন মা বিশ্রাম নিতে পারে, একটু রিলাক্স হতে পারে। সন্তান সম্পর্কে নেতিবাচক কথা বলা উচিত নয় (শিশুর গায়ের রঙ, লিঙ্গ, মাথার চুল ইত্যাদি নিয়ে কথা বলা যাবে না)। অনিদ্রা হলে ঘুমের ওষুধ দেওয়া যেতে পারে।

তীব্রমাত্রার সমস্যা : সিজোফ্রেনিয়ায় আক্রান্ত হওয়া (চড়ংঃঢ়ধৎঃঁস চংুপযড়ংরং)। এ ক্ষেত্রে রোগীর ভয়, অস্থিরতা, ভারসাম্যহীনতা, অস্তিত্বহীন বস্তুর অস্তিত্ব অনুভব করা, আত্মহত্যার প্রবণতা, এমনকি শিশু হত্যার প্রবণতাও দেখা দিতে পারে।

তীব্রমাত্রার মানসিক সমস্যায় করণীয় : মনোরোগ বিশেষজ্ঞের পরামর্শ নিতে হবে। হাসপাতালেও ভর্তি করানোর প্রয়োজন হতে পারে। ওষুধ, যেমনÑ ঈযষড়ৎঢ়ৎড়সধুরহব, ঋষঁড়ীবঃরহব, ঙবংঃৎধফরড়ষ ইত্যাদি দরকার হতে পারে। খুব তীব্রমাত্রায় মানসিক সমস্যা হলে মা থেকে শিশুকে আলাদা রাখার প্রয়োজন হতে পারে। জন্মদান-পরবর্তী মানসিক সমস্যা সন্তানের জন্মের ৩ মাসের মধ্যেই বেশি হয়। গর্ভপাত-পরবর্তীকালেও এ সমস্যা হতে পারে।

আমরা চাই, প্রত্যেক নারী তার মাতৃত্ব উপভোগ করুক। এ জন্য একজন নতুন মাকে সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দিতে হবে, ভরসা দিতে হবে, দিতে হবে পর্যাপ্ত সময়।

সর্বোপরি শারীরিক সমস্যার পাশাপাশি গুরুত্ব দিতে হবে তার মানসিক স্বাস্থ্যও। ভালো থাকুন মৌরি।

লেখক : সহকারী অধ্যাপক, আনোয়ার খান মডার্ন মেডিক্যাল কলেজ অ্যান্ড হাসপাতাল

চেম্বার : ফেয়ার ল্যাব লিমিটেড, ২০/৫ বাবর রোদ, মোহাম্মদপুর, ঢাকা। ০১৫৫৭৪০৪০২৭

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT