রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

মঙ্গলবার ১৫ জুন ২০২১, ১লা আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

১২:১৩ পূর্বাহ্ণ

গোয়ালন্দে অপরিকল্পিত সেতুতে দুর্ভোগ

প্রকাশিত : ০৫:২১ AM, ২৫ সেপ্টেম্বর ২০১৯ বুধবার ৩৩৯ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

ভালো রাস্তা কেটে অপ্রয়োজনে তৈরি করা হয়েছে বিশাল উঁচু এক সেতু। কিন্তু সেই সেতুতে উঠতে নির্মাণ করা হয়নি সড়ক। দেওয়া হয়নি গাইডওয়াল। এতে বালুমাটি ধসে পাশের খাদে পড়েছে। ঝুঁকি নিয়ে চলাচল করতে গিয়ে প্রায়ই যানবাহন খাদে পড়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটছে। এ কারণে এলাকাবাসী ব্রিজটির নাম দিয়েছেন ‘খামাখা ব্রিজ’।

রাজবাড়ীর গোয়ালন্দ উপজেলার দৌলতদিয়া ইউনিয়নের ৮নং ওয়ার্ডের অন্তর্গত আনছার মেম্বরপাড়া ওহাব ফকিরের বাড়ির কাছে খালের ওপর এলজিইডির একটি রাস্তা কেটে ৪০ ফুট দীর্ঘ সেতুটি নির্মাণ করা হয়েছে। দুর্যোগ ব্যবস্থাপনা অধিদপ্তরের সেতু/কালভার্ট নির্মাণ কর্মসূচির আওতায় ২০১৮-১৯ অর্থবছরে ৩০ লাখ ৭৭ হাজার ৫৫৬ টাকা ব্যয়ে রাজবাড়ীর ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান মেসার্স রাবেয়া কনস্ট্রাকশন এটি নির্মাণ করে। স্থানীয় অটোচালক আব্দুল হাই জানান, ঝুঁকিপূর্ণ এই সেতু দিয়ে ওঠা-নামা করতে গিয়ে প্রায়ই অটোরিকশা, ভ্যান, পিকআপ উল্টে খাদে পড়ে যাওয়ার ঘটনা ঘটছে। সেতুটিতে দ্রুত গাইড বাঁধ দিয়ে অনেকটা ঢালসহ অ্যাপ্রোচ সড়কটি ভালোভাবে নির্মাণ করা দরকার।

স্থানীয় বাসিন্দা আমজাদ ফকির, সাহিন বেপারী, জাহাঙ্গীর হোসেন, রিনা বেগম, নুরজাহান বেগমসহ অনেকেই জানান, এখানে সেতুর কোনো প্রয়োজনই ছিল না। জায়গাটি সামান্য নিচু হলেও খাল বা জলাশয় নয়। এখান দিয়ে কোনো পানিও প্রবাহিত হয় না। ছোট একটি কালভার্টসহ এখানে সুন্দর একটি রাস্তা ছিল। রাস্তাটি কেটে অন্তত ১০ ফুট উঁচু করে সেতু করায় আমাদের এখন অসুবিধা হচ্ছে। ব্রিজটিতে উঠতে গিয়ে নানা দুর্ভোগের শিকার হতে হচ্ছে। এ জন্য এলাকার লোকজন বিরক্ত হয়ে এর নাম দিয়েছে ‘খামাখা ব্রিজ’। স্থানীয়দের অভিযোগ, নিজেদের পকেট ভারী করতে সংশ্নিষ্টরা যেনতেনভাবে এখানে এ ধরনের একটি অপ্রয়োজনীয় সেতু নির্মাণ করেছেন। এ বিষয়ে গোয়ালন্দ উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তা মো. আবু সাইদ মণ্ডল জানান, সেতুর দুই পাশে অ্যাপ্রোচ সড়ক করা হয়েছিল। কিন্তু বৃষ্টিতে ধসে গিয়ে চলাচলের সমস্যা হচ্ছে। সেতু নির্মাণের সঙ্গে গাইডওয়ালের কাজ ধরা ছিল না। আগামীতে দুই পাশে গাইডওয়াল দিয়ে ভালোভাবে অ্যাপ্রোচ সড়ক করা করা হবে।

এ প্রসঙ্গে গোয়ালন্দ উপজেলা প্রকৌশলী মো. সহিদুল ইসলাম জানান, এলজিইডির রাস্তা কেটে ওই জায়গায় সেতু করার ব্যাপারে প্রকল্প বাস্তবায়ন অফিস (পিআইও) আমাদের সঙ্গে যোগাযোগ করেনি। জনগণের যেহেতু দুর্ভোগ হচ্ছে সেহেতু পিআইও অফিস তা নিরসনে আশা করি পদক্ষেপ নেবে। অন্যথায় আমরা অ্যাপ্রোচ সড়ক করে দেওয়ার চেষ্টা করব।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

এই বিভাগের জনপ্রিয়

© ২০২১ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT