রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

বুধবার ২৮ অক্টোবর ২০২০, ১৩ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৬:০৯ পূর্বাহ্ণ

খালেদার মুক্তিতে ঐক্যবদ্ধ দল-জোট

প্রকাশিত : ১০:৩৫ AM, ৭ অগাস্ট ২০১৯ Wednesday ২০১ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

অবশেষে ‘দলে’ সমন্বয়! ‘জোটে’ ফেরানো হয়েছে বিশ্বাস! ‘মঞ্চ’ও থাকবে ঐক্যবদ্ধ! খালেদা জিয়ার সম্মানজনক মুক্তি চায় বিএনপিসহ সবাই। প্যারোলে মুক্তি বিএনপিও আশা করে না। হঠাৎ ক্ষমতাসীনদের পক্ষ থেকে প্যারোলে মুক্তি নিয়ে আলোচনা শুরু হলে বিএনপিও ভাবনায় পড়ে।

কারাগারে বন্দি অবস্থায় বড় দুর্ঘটনা থেকে বাঁচাতে দেশের বাইরে নিয়ে উন্নত চিকিৎসার জন্য কিছুটা নরম হয় দলটি। সেই আলোকে গত সপ্তাহ থেকে আইনজীবী ও স্থায়ী কমিটির সঙ্গে কয়েকটি বৈঠক করে কৌশলও ঠিক করা হয়। প্রতিটি বৈঠকে লন্ডন থেকে সংযুক্ত হন দলের ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমান।

খালেদা জিয়া প্যারোলে মুক্তি পেলে বিএনপির রাজনৈতিক অবস্থা ও আইনি পদক্ষেপ কী থাকবে তাও নির্ধারণ করা হয়। আর না পেলে কী করণীয় তাও দল-জোটের সবাইকে নিয়ে নীতিগত সিদ্ধান্ত নেয়া হয়েছে।

বিএনপির নির্ভরযোগ্য সূত্রের দাবি, সরকার খালেদা জিয়ার প্যারোল নিয়ে রাজনীতি করছে, সেটি জেনেই বিএনপি তাদের কর্মপথ তৈরি করে রেখেছে। খালেদা জিয়া মুক্তি পেলে বিএনপির তাৎক্ষণিক কী করণীয় আর মুক্তি না পেলে দলের ভূমিকা কী থাকবে তারও একটা লিখিত প্রস্তাবনা তৈরি রেখেছে দলটি।

ঈদের আগে-পরে শিগগিরই খালেদা জিয়া ছাড়া পাবেন বিএনপি এখনো দৃঢ় বিশ্বাস রাখছে। সেই আলোকে আরাফাত রহমান কোকোর স্ত্রী শর্মিলা রহমান সিঁথিকেও রিজার্ভ হিসেবে দেশে এনে রাখা হয়েছে।

খালেদা জিয়া যদি হঠাৎ ছাড়া পেয়ে যান তখন খালেদার সুচিকিৎসায় শর্মিলা রহমান সফরসঙ্গী হতে পারেন। এর আগে পারিবারিক সব বিষয় নিয়ে খালেদা জিয়ার সঙ্গে শর্মিলা রহমান সিঁথি দেখা করবেন বলেও জানা গেছে।

আর যদি মুক্তি না পান তাহলে খালেদা জিয়ার দেয়া পুরনো সিদ্ধান্তেই হাঁটবে বিএনপি। ঈদের পর কয়েকটি বিভাগীয় সমাবেশ শেষে খালেদা জিয়ার মুক্তির দাবিতে ঢাকায় বৃহৎ অবস্থান কর্মসূচি কিংবা সমাবেশের প্রস্তুতি রাখছে।

এছাড়াও ছাত্রদল-যুবদল ও দলের অঙ্গ সংগঠনের সব নেতাকর্মীকে নিয়ে রাজপথে খালেদার মুক্তির জন্য আন্দোলনের কর্মসূচির কথাও চিন্তা করছে। এর অংশ হিসেবে খালেদা জিয়ার মুক্তি ইস্যুতে দলের স্থায়ী কমিটির মধ্যে যে এতদিন একটু মনোমালিন্য ছিলো তাও দূর করা হয়েছে।

‘দলে’ আনা হয়েছে সমন্বয়। আন্দোলনসহ খালেদার মুক্তি ইস্যুতে স্থায়ী কমিটির সব সদস্য এখন থেকে ঐক্যমত থাকবেন। দলের সব শীর্ষ নেতা রাজপথে থাকবেন। এছাড়া খালেদা জিয়াকে নিয়ে গড়ে উঠা মুক্তিমঞ্চও ঐক্যবদ্ধ থাকার প্রতিশ্রতি।

রাজনৈতিক সূত্রগুলোর ভাষ্য, সমপ্রতি খালেদা জিয়ার প্যারোলে মুক্তি নিয়ে যে দেশে কিছু একটা হচ্ছে তা প্রকাশ্যে সভা-সেমিনারে আওয়ামী লীগ ও বিএনপির বক্তব্যের মাধ্যমে উঠে আসে।

গত শনিবার বিএনপির আইনজীবীদের পক্ষ থেকে দাবি করা হয় সরকার এখনো প্যারোল নিয়ে বিএনপির সাথে আলোচনা করেনি। খালেদা জিয়ার প্যারোলের বিষয়ে সরকার বিভিন্ন বক্তব্য দিচ্ছে।

আওয়ামী লীগের পক্ষ থেকে এ নিয়ে এর আগে দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী ওবায়দুল কাদের বলেছিলেন, প্যারোলে খালেদা জিয়ার মুক্তি চাইলে প্রধানমন্ত্রীর সাথে বিএনপি নেতৃবৃন্দ আলোচনা করতে পারেন।

খালেদা জিয়ার মুক্তির বিষয়টি আদালতের এখতিয়ার। জামিনে মুক্তি দেয়ার বিষয়টি আদালতের, সে এখতিয়ার সরকারের নয়।

তিনি আরও বলেন, এর আগে প্রায় ৩০টি মামলায় বেগম জিয়া জামিন পেয়েছেন। আর যে মামলায় রায় হয়েছে সে মামলা আমরা করিনি, রায়ও আমরা দেইনি। তাই রায়ের বিষয়ে তারা আইনিভাবে আদালতে এগুতে পারে। এটা পুরোটাই আদালতের বিষয়।

এরপর বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলামও জরুরি সংবাদ সম্মেলন করে জানান, খালেদা জিয়ার শারীরিক অবস্থার ভয়াবহ অবনতি হয়েছে। এ নিয়ে তার পরিবার, দল এবং দেশের জনগণ উদ্বিগ্ন। তাই অবিলম্বে তার পছন্দ অনুযায়ী চিকিৎসার ব্যবস্থা করতে সরকারের প্রতি আহ্বান জানান তিনি।

ওবায়দুল কাদেরের বক্তব্য ও বিএনপি মহাসচিবের প্রতিক্রিয়ার পরই পর্দার আড়ালে সরকারের সঙ্গে বিএনপির বৈঠক হয় বলে রাজনৈতিক সূত্রগুলো দৈনিক আমার সংবাদকে নিশ্চিত করেন।

দলীয় সিদ্ধান্তের অংশ হিসেবে খালেদা জিয়ার প্যারোলের বিষয়ে সরকারের সঙ্গে আলোচনা করছেন তার ভাই শামীম ইস্কান্দার। কোন প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়ার মুক্তি আসবে এমন একটি ছক ক্ষমতাসীনদের কাছ থেকে পেয়েছে বিএনপি।

ওই সূত্রের দাবি, প্যারোলের জন্য খালেদা জিয়াকে রাজনীতি থেকে অবসরের ঘোষণা দেয়ার জন্য বিএনপিকে শর্ত দিয়েছে সরকার। দলের নীতিনির্ধারকদের পরামর্শে শামীম ইস্কান্দার ওই শর্তেও রাজি হয়েছেন। প্যারোল আবেদন বিবেচনার আগেই সরকার এ বিষয়ে আনুষ্ঠানিক ঘোষণা চেয়েছিলো।

এ বিষয়গুলো নিয়ে বিএনপিতে চুলচেরা বিশ্লেষণ হয়। বিএনপির আতঙ্ক, সমঝোতা ছকের আলোকে বিএনপি যদি ঘোষণা দেয় খালেদা জিয়া রাজনীতি থেকে অবসরে যাবেন, আর দিন শেষে সরকার কথা রাখলো না, খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিলো না, সরকার প্যারোল আবেদন নিয়ে আরেকটি নতুন রাজনৈতিক খেলা করলো।

তাই কৌশলগতভাবে বিএনপি নীরব রয়েছে। সরকার যদি বিএনপিকে বাধ্য করে তাহলে খালেদা জিয়ার সুচিকিৎসা নিশ্চিতে দেশের বাইরে নিয়ে যেতে বিএনপি এগিয়ে যাবে। সবমিলিয়ে সেখানেও যদি দিনশেষে খালেদার মুক্তি আটকে যায় তাহলে বিএনপি আন্দোলনের পথই বেছে নেবে।

খালেদার মুক্তি ইস্যুতে বিএনপির ভাইস চেয়ারম্যান ও তার সিনিয়র আইনজীবী অ্যাডভোকেট খন্দকার মাহবুব হোসেন বলেছেন, ‘মিথ্যে মামলা দিয়ে দেশনেত্রী বেগম খালেদা জিয়াকে কারাগারে আটকে রাখা হয়েছে।

তার বিরুদ্ধে সব মিথ্যা মামলা প্রত্যাহার করে ঈদের আগেই তাকে মুক্তি দেয়ার দাবি জানাই। আইনের সাধারণ প্রক্রিয়ায় বেগম জিয়াকে মুক্তি করা যাবে না।

সুতরাং রাজপথ উত্তপ্ত করতে হবে। কিন্তু আমাদের দুর্ভাগ্য হাজার হাজার বিএনপি নেতাকে মামলা দিয়ে আটকে রাখা হয়েছে। রাস্তায় নামতে দেয়া হচ্ছে না। এর জন্য আমরা কিছু করতেও পারছি না।’

বিএনপি মহাসচিব মির্জা ফখরুল ইসলাম আলমগীর বলেছেন, খালেদা জিয়া কারাগার থেকে বের হবেন এবং এ দেশের মানুষ তাকে বের করবে, সংগ্রামের মধ্যে দিয়েই বের করবে। আমরা বারবার এ সংকটে পড়েছি, বিপদে পড়েছি।

কিন্তু আবার ফিনিক্স পাখির মতোই জেগে উঠেছি। সংগ্রাম ছাড়া তো আমরা কখনোই টিকবো না। আজকে যে সংগ্রাম এ সংগ্রাম শুধু বিএনপির সংগ্রাম না। এই সংগ্রাম দেশ ও জাতিকে রক্ষা করার লড়াই।

এই সংগ্রাম এই লড়াইকে অব্যাহত রাখতে হবে। বিএনপির যুগ্ম মহাসচিব ও নরসিংদী জেলা বিএনপির সভাপতি খায়রুল কবির খোকন আমার সংবাদকে বলেন, আইনি প্রক্রিয়ায় খালেদা জিয়ার মুক্তির আশা ক্ষীণ।

খালেদা জিয়ার মুক্তির জন্য বিকল্প রাস্তা খুঁজতে হবে। বিএনপির নীতিনির্ধারকরা সেই পথ শিগগিরই খুঁজে বের করবেন। দলের মাঠপর্যায়ের এই নেতা আরও বলেন, কার্যত আন্দোলন ও আইনি প্রক্রিয়া দুটিই আমাদের কৌশলগতভাবে চালিয়ে যেতে হবে।

তিনি আরও বলেন, খালেদা জিয়ার মামলা রাজনৈতিক মামলা, ষড়যন্ত্রমূলক মামলা। তাই রাজনৈতিক মামলা রাজনৈতিকভাবেই মোকাবিলা করতে হবে।

তবে এটি এখন স্পষ্ট সাবেক তিনবারের প্রধানমন্ত্রী জনপ্রিয় নেত্রী আইনিভাবে মুক্ত হবেন না। যে দেশে প্রধান বিচারপতি বিচার পায় না, সে দেশে খালেদা জিয়ার মুক্তিও আশা করা যায় না।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT