রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

শনিবার ৩১ অক্টোবর ২০২০, ১৬ই কার্তিক, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

০৩:৪২ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম
◈ সরকার বাজার শ্রমিক ইউনিয়ন গ্রুপ পরিচালনা কমিটির সভাপতি সুলতান ও সম্পাদক সেলিম ◈ শেরপুর প্রেসক্লাব নেতৃবৃন্দের সাথে ইংল্যান্ডের কাউন্সিলর মর্তুজার মতবিনিময় ◈ রাজশাহীর দূর্গাপুর থানার ওসি খুরশিদা বানুর তৎপরতায় আইন-শৃঙ্খলার উন্নতি ◈ নতুন দায়িত্বে নূরে আলম মামুন ◈ ভাষা সৈনিকের নাতি শুভ্র’র খুনীরা যতই শক্তিশালী হোক তারা রেহাই পাবে না…..গৃহায়ন ও গণপূর্ত প্রতিমন্ত্রী শরীফ আহমেদ ◈ ২ টাকার খাবারের কার্যক্রম এবার ফুলবাড়ীয়া উপজেলায় ◈ রাজশাহীতে মানবাধিকার রক্ষাকারী নেটওয়ার্ক সভা ◈ রায়পু‌রে পুকু‌রে প‌ড়ে দুই শিশুর করুন মৃত‌্যু ◈ পরিবারের নিরাপত্তা চেয়ে কাতার প্রবাসীর সংবাদ সম্মেলন ◈ মহানবী (সাঃ)এর ব্যাঙ্গ চিত্র প্রদর্শনের প্রতিবাদে,মধ্যনগরে বিক্ষোভ মিছিল ও সমাবেশ অনুষ্ঠিত

ক্যাসিনো অবৈধ হলে উপকরণ বৈধ ছিল কেন?

প্রকাশিত : ০৪:৫৮ AM, ২৮ সেপ্টেম্বর ২০১৯ Saturday ৮৪ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

প্রায় এক বছর আগে ঢাকার গুলিস্তানে বঙ্গবন্ধু স্টেডিয়ামে এয়ার কন্ডিশনার বিক্রি করে এমন একটি দোকানে গিয়েছিলেন কয়েকজন নেপালি নাগরিক।

সেখানে কথা প্রসঙ্গে নেপালি নাগরিকরা জানতে চান, এসি আমদানীর মতো করে কিছু ‘রুলেট মেশিন’ আমদানী সম্ভব কি-না। দোকানী বিষয়টি নিয়ে তার আমদানীকারকের সাথে যোগাযোগ করেন।

আমদানী নীতিমালায় রুলেট মেশিনের ওপর কোনো নিষেধাজ্ঞা ছিল না। ফলে তা আমদানী করতে রাজী হন আমদানীকারক, এবং একটি মেশিন তিনি বৈধভাবে আমদানী করেন।

সেই নেপালি নাগরিকদের একজনের নাম উঠে এসেছে সাম্প্রতিক ক্যাসিনোবিরোধী অভিযানের সময়।

“যে পণ্যটা আমদানি করা হয়েছে তা আমদানিযোগ্য ছিলো বলেই আমদানী হয়েছে। কমলাপুরে আসার পর কাস্টমস কর্মকর্তারা পরীক্ষা করেছেন। শুল্কও যথাযথ দেয়া হয়েছে। এরপর পণ্য খালাস করা হয়। এখানে একটি ক্যাসিনো উপকরণ ছিলো। পণ্যটা অবৈধ ছিল না” বলছিলেন একজন আমদানীকারক।

যেই একটি পণ্যের কথা এই আমদানীকারক বলছেন তার নাম রুলেট, যা মূলত ক্যাসিনোতে জুয়া খেলায় ব্যবহৃত হয়।

তার মতে আমদানী বৈধ ছিলো বলেই তিনি একটি রুলেট ব্যাংকে এলসি খুলে নিয়ম মেনে আমদানী করেছেন।

তবে জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের কর্মকর্তারা বলছেন বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের আমদানী নীতিমালার সুযোগ নিয়েই রুলেট মেশিন, টেবিল, ক্যাসিনো ওয়ার গেইম টেবিল বা স্লট মেশিন আমদানী হয়েছে। কিন্তু তারপরেও আইন-শৃঙ্খলা রক্ষাকারী বাহিনীর সাম্প্রতিক অভিযানে ঢাকার বেশ কিছু ক্যাসিনোতে এ যন্ত্রটি দেখা যাওয়ার পর বৈধভাবে আমদানী করা আমদানীকারকদেরও জিজ্ঞাসাবাদ করছে শুল্ক গোয়েন্দা ও রাজস্ব কর্মকর্তারা।

জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান মোশাররফ হোসেন ভুঁইয়া অবশ্য বলছেন, ক্যাসিনো সামগ্রী আমদানীর পরিমাণ খুব বেশি নয়।

“আমদানীর ভলিউম খুব বেশি না। কালেভদ্রে আমদানী হয়েছে। কয়েক জায়গায় দেখেছি খেলার সামগ্রী হিসেবে এসেছে। অন্য দ্রব্যের ফাঁকে নিয়ে এসেছে এমন কিছু ঘটনাও দেখেছি”।

অর্থাৎ আমদানী নীতিমালা মেনে আমদানীর সুযোগ থাকলেও ক্যাসিনো সামগ্রী আনা হয়েছে কার্যত খেলার সামগ্রীর আড়ালে। বিবিসি বাংলায় আরও পড়ুন:

ঢাকার ক্যাসিনোগুলোতে এবারের অভিযানে অংশ নেয়া কয়েকজন কর্মকর্তা জানিয়েছেন প্রচলিত জুয়ার বাইরে ক্লাবগুলোতে সর্বোচ্চ ৫টি করে বাকারা মেশিন, সব ক্যাসিনো মিলিয়ে ৩০-৪০টির মতো রুলেট ও আর প্রতি ক্লাবে স্লট মেশিন পাওয়া গেছে ৪/৫ টি করে।

এর মধ্যে বাংলাদেশে আনা প্রতিটি রুলেটের দাম প্রায় সাত হাজার ডলার, আর আর স্লট মেশিনের দাম গড়ে দশ হাজার ডলারের মতো বলে বলছেন আমদানীকারকরা।

কিন্তু ক্যাসিনো বাংলাদেশে অবৈধ হলে আমদানী নীতিমালায় কি করে ক্যাসিনো সামগ্রী বৈধ করা হলো?

জবাবে রাজস্ব বোর্ডের চেয়ারম্যান বলেন, এটা আগে নীতিনির্ধারকদের ধারণাতেই আসেনি যে এখানে এতো ক্যাসিনো গড়ে উঠবে।

“আমরা তো ভাবিনি। অনেকের ধারণাতেই আসেনি। আর একটা বিষয় হলো ট্রেড ফেসিলিটেশন। এর আওতায় যত কম আইটেমে নিষেধাজ্ঞা দেয়া যায় ততই সেই দেশের ট্রেড লিবারেল। সেজন্য যত কম পণ্য নিষিদ্ধ করা যায় সেভাবে পলিসি তৈরি করে।”

তবে এবার ক্যাসিনো সামগ্রী আমদানীর ও ছাড় করানোর ওপর ইতোমধ্যেই নিষেধাজ্ঞা দিয়েছে রাজস্ব বোর্ড।

মিস্টার ভুঁইয়া বলছেন, তিনি খুব শিগগিরই আমদানী নীতিমালা সংশোধনের জন্য বাণিজ্য মন্ত্রণালয়কে চিঠি দেবেন।

তবে ভবিষ্যতে বিশেষ পর্যটন জোনগুলোতে ক্যাসিনোর অনুমোদন দেয়া হলে সেটি তখন সরকার বিবেচনা করে পদক্ষেপ নিতে পারবে বলেও মন্তব্য করেন তিনি। বিবিসি বাংলা

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT