রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

রবিবার ২০ সেপ্টেম্বর ২০২০, ৫ই আশ্বিন, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

১১:১৯ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম

কবে ঘুরবে বিমানবন্দরের বন্ধ সিঁড়ি, জানেন না কেউ!

প্রকাশিত : ০৮:০৭ PM, ১৩ ফেব্রুয়ারী ২০২০ Thursday ৭১ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

রাজধানীর বিমানবন্দরের ফুটওভার ব্রিজের চলন্ত সিঁড়ি দীর্ঘদিন ধরে বন্ধ থাকায় বিপাকে পড়েছেন হাজারো মানুষ। বাধ্য হয়ে পথচারীরা জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ফুটওভার ব্রিজের নিচ দিয়ে রাস্তা পার হচ্ছেন। কবে এই সিঁড়ি সচল হবে তা নির্দিষ্ট করে বলতে পারছেন না কেউ।

সরেজমিন গিয়ে দেখা যায়, হযরত শাহজালাল আন্তর্জাতিক বিমানবন্দরের সামনে ঢাকা-ময়মনসিংহ মহাসড়কের ওপর ফুটওভার ব্রিজের চলন্ত সিঁড়ি দুটি বন্ধ। পথচারীরা পায়ে হেঁটে ওভার ব্রিজ পার হচ্ছেন। সিঁড়ি বন্ধ থাকায় বয়স্ক ও অসুস্থ্য মানুষদের অনেক কষ্ট করে রাস্তা পার হতে হচ্ছে। এদিকে, পথচারীদের চাপ বাড়ার কারণে সিঁড়ির দুই পাশে লাইন ধরে পার হচ্ছেন মানুষ।

পথচারীদের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, ফুটওভার ব্রিজটি চালু হওয়ার ৩ থেকে ৪ মাস পরই বন্ধ হয়ে যায় চলন্ত সিঁড়িটি। এমনকি এটি দেখা শোনারও কেউ নেই। সিঁড়িটি চালু হওয়ার পর বৃদ্ধ নারী-পুরুষ ও শিশুদের চলাচলের সুবিধা হয়েও এটি বন্ধ হওয়ায় পথচারীরা বাধ্য হয়ে অনেক সময় জীবনের ঝুঁকি নিয়ে রাস্তা দিয়েই পার হচ্ছেন।

বন্ধ সিঁড়ির বিষয়ে জানতে চাইলে দক্ষিণ খানের বাসিন্দা পথচারী রবিউল ইসলাম ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, চলন্ত সিঁড়ির ফলে বয়স্ক নারী-পুরুষদের চলাচলের সুবিধা ছিল। কিন্তু এ সিঁড়ি বন্ধ হওয়ার কারণে বয়স্ক নারী-পুরুষের রাস্তা পারাপারে সমসস্যা হচ্ছে। কারণ খাড়া সিঁড়ি বেয়ে ওপড়ে ওঠা-নামা খুবই কষ্টকর।

নাম প্রকাশে অনিচ্ছুক বিমানবন্দরে দায়িত্বরত ট্রাফিক পুলিশের এক কর্মকর্তা ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, এখানে দায়িত্ব পালন করা অনেক চ্যালেঞ্জ। একদিকে আন্তর্জাতিক বিমানবন্দর, অন্যদিকে উত্তরখান, দক্ষিণ খান, আশকোনাসহ বিভিন্ন এলাকার হাজার হাজার মানুষ এ রাস্তাটি ব্যবহার করেন। ফুটওভার ব্রিজটি নষ্ট থাকায় পথচারীদের পারাপারের অনেক সমস্যা হচ্ছে। অনেকেই জীবনের ঝুঁকি নিয়ে সড়কে পায়ে হেঁটেই রাস্তা পার হতে চায়। আমরা যানবাহন নিয়ন্ত্রণ করবো, না পথচারীদের পারাপারে সহযোগিতা কবরো?

ফুটওভার ব্রিজের চলন্ত সিঁড়িটি কবে সচল হবে জানতে চাইলে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের অতিরিক্ত প্রধান প্রকৌশলী (ভারপ্রাপ্ত) শরীফ উদ্দিন ডেইলি বাংলাদেশকে বলেন, এ বিষয়ে আমি কিছু জানি না। আপনি তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মোহাম্মাাদ আরিফুর রহমানের সঙ্গে যোগাযোগ করেন। পরে তত্ত্বাবধায়ক প্রকৌশলী মোহাম্মাদ আরিফুর রহমানের নম্বরে যোগাযোগ করা হলে তিনি ফোন রিসিভ করেননি।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।




© ২০২০ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT