রেজি. নং- ১৯৬, ডিএ নং- ৬৪৩৪

বুধবার ১৯ জানুয়ারি ২০২২, ৬ই মাঘ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ

০৯:৫৪ পূর্বাহ্ণ

শিরোনাম
◈ তাহিরপুর হাওর পাড়ে বৃক্ষরোপণের স্থান পরিদর্শন করেন,ইউএনও ◈ সরকারি কাজে বাধা, যুবকের তিনমাস কারাদণ্ড ◈ গজারিয়ায় কম্বিং অভিযানে ১০ হাজার মিটার কারেন্ট জাল ও ২ টি বেহুন্দি জাল আটক করে -কোস্ট গার্ড ◈ বান্দরবানে সেনা জোনে ১১০ ব্রিগেড সিগন্যাল কোম্পানী প্রতিষ্ঠাবার্ষিকী অনুষ্ঠিত ◈ শাহজাদপুরে আইনজীবীদের আদালত বর্জন অব্যাহত ◈ জুতা পরে কমলমতি শিশুদের ক্লাসে ঢুকতে দেয় না প্রধান শিক্ষক ◈ রবিবা’র আধুনিক তথ্যপ্রযুক্তির ব্যবহার বিষয়ে দুই প্রতিষ্ঠানের সাথে মতবিনিময় সভা অনুষ্ঠিত ◈ পাকুন্দিয়ায় শীতকালীন ক্রীড়া প্রতিযোগিতা অনুষ্ঠিত ◈ ভূঞাপুরে কর্মসৃজন প্রকল্পের কাজের উদ্বোধন ◈ যশোরের শার্শায় ইজিবাইক চালককে হত্যা করে বাইক ছিনতাই

এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণের দাবি ও প্রাসঙ্গিক ভাবনা

রমেশ চন্দ্র সরকার

প্রকাশিত : ০৫:১৮ PM, ৩০ মে ২০২০ শনিবার ২৩৯ বার পঠিত

আলোকিত সকাল রিপোর্ট :
alokitosakal

অনেক চড়াই উৎরাই ,রাজনৈতিক অস্থিরতা ও নানা পটপরিবর্তনের মধ্যদিয়ে আগামি ২০২১ খ্রিস্টাব্দে বাংলাদেশ ৫০ বছরে পদার্পণ করবে। পালিত হবে সুবর্ণ জয়ন্তী এবং চলতি বছরে উদযাপিত হয়েছে মুজিব শতবর্ষ। জেনে ভালই লাগছে । ইতোমধ্যে খাদ্য নিরাপত্তা ,জ্বালানি নিরাপত্তা ,যোগাযোগ ব্যবস্থার উন্নতি ও আর্থিক স্বচ্ছলতা এসেছে দেশটির একথা বলা যায়। এতকিছু অগ্রগতির পরেও আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থার একি হাল। বিষয়টি নিয়ে ভাববার সময় এসেছে।

প্রিয় পাঠক, আজকে কলম ধরলাম এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ প্রসঙ্গে । ৪৯ বছর ধরে খুঁড়িয়ে চলা আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থার হাজারো রুপ। আছে সরকারি বেসরকারির মধ্যে ব্যাপক বৈষম্য । বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোর মধ্যেও বৈষম্য লক্ষ্য করা যায়। এখনো সরকারের নজরদারির বাহিরে রয়েছে অনেক শিক্ষা প্রতিষ্ঠান (কিন্ডারগার্টেন,ইংলিশ মিডিয়াম স্কুল, কওমি শিক্ষা) । যে যার মতো কারিকুলাম তৈরী করে পাঠদান চালিয়ে যাচ্ছে। বিভিন্ন সমস্যায় জর্জরিত আমাদের শিক্ষা ব্যবস্থা এতো দিন নীতিহীন ছিল। রাষ্ট্রীয় দর্শন ও জাতীয় চাহিদা অনুযায়ী দেশের শিক্ষাব্যবস্থাকে ঢেলে সাজানোর উপায় ও অবলম্বন হলো শিক্ষানীতি। সর্বশেষ ২০১০ খ্রিস্টাব্দে জাতীয় শিক্ষানীতি চালু হলে জাতির কংলঙ্ক মোচন হয়।

কিন্তু এই শিক্ষানীতি কতটুকু বাস্তবায়িত হচ্ছে তা ভেবে দেখা দরকার। যদিও উল্লেখিত শিক্ষানীতির বাস্তবায়ন কাল ধরা হয়েছে (২০১০ – ২০১৮) পর্যন্ত। বর্তমানে বাস্তবায়নাধীন শিক্ষানীতি পুরোপুরি বাস্তবায়ন হলে বেসরকারি শিক্ষকদের প্রাণের দাবী পূরণ হবে বলে ধারনা করা যায়। পৃথিবীর একাধিক দেশ ঘুরে এটা আমার কাছে প্রতীয়মান হয়েছে যে,আমাদের শিক্ষাব্যবস্থায় অবকাঠামোগত উন্নয়ন, শ্রেণিকক্ষে আইসিটির ব্যবহার ও শিক্ষকদের পেশাগত দক্ষতা বৃদ্ধিতে প্রশিক্ষণ ইত্যাদি বিষয়ে দারুণ অগ্রগতি হলেও একথা বলা বাহুল্য আমাদের শিক্ষকগণ এখনো আর্থিক দৈন্যতায় ভুগছে।

প্রিয় পাঠক,লেখাটি যখন লিখতে শুরু করি, তখন দেশে এমপিওভুক্ত বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের সংখ্যা প্রায় ২৭,৮১০টি এবং কর্মরত শিক্ষক/কর্মচারীর সংখ্যা প্রায় ৪,৯৬,৩৬২ জন। এর বাহিরে নন-এমপিও বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান আছে ৭ সহস্রাধিক এবং কর্মরত শিক্ষক/কর্মচারী প্রায় ৮০ হাজার। গত অক্টোবর মাসে নন-এমপিও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান গুলোর ২,৭৩০টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানকে এমপিওভুক্তির লক্ষ্যে নাম ঘোষণা করা হয়। যা এমপিওভুক্তির প্রক্রিয়া চলমান। মোর্দ্দা কথায় শিক্ষা ব্যবস্থার বিরাট একটি অংশকে জাতীয়করণের বাহিরে রেখে শিক্ষার গুণগত মান কিভাবে বৃদ্ধি করা যায় তা আমার বোধগম্য নয়। নিশ্চয়ই এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের প্রাণের দাবিটি উপেক্ষিত হোক এটা কারো কাম্য নয়।

মুজিব শতবর্ষ উদযাপনকে ঘিরে এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এক যোগে জাতীয়করণে শিক্ষকদের প্রত্যাশা ছিল অনেক কিন্তু করোনার প্রাদুর্ভাবে তা চাপা পরে যায়। আসন্ন বাজেটকে ঘিরে প্রতি বছরের ন্যায় এবারও শিক্ষক সংগঠন গুলো এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান এক যোগে জাতীয়করণের দাবিতে সোচ্চার হচ্ছে। ইতিমধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী এবং শিক্ষামন্ত্রীর দরবারে তাদের আরজি পেশ করছে। সে লক্ষ্যে আসন্ন ২০২০-২০২১ অর্থবছরে বাজেট বরাদ্দসহ প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিতে প্রধানমন্ত্রীর নিকট আবেদন জানিয়েছেন। আবেদনে বলা হয়, এমপিওভুক্ত শিক্ষক-কর্মচারীরা আমরা দীর্ঘদিন থেকে বেতন-বৈষম্যের শিকার। দীর্ঘ ১৬ বছরেও ২৫ শতাংশ ঈদ বোনাসের পরিবর্তন নেই। ১০০০ টাকা বাড়ি ভাড়া, ৫০০ টাকা চিকিৎসা ভাতা, এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের ২০১৬ সাল থেকে টাইম স্কেলের পরিবর্তে উচ্চতর গ্রেড দেওয়ার কথা থাকলেও দীর্ঘ ৫ বছরেও তা কার্যকর হয়নি। এমপিওভুক্ত শিক্ষকদের শিক্ষা সহায়ক ভাতা নেই, নেই কোনো বদলি প্রথা। এছাড়া এমপিওভুক্তির শর্ত শিথিল করে আরও শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এমপিওভুক্তির আওতায় আনা।

দেশে অনেক মেগা মেগা প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হয়, যা একটি নির্দিষ্ট এলাকায় প্রভাব ফেলে। কিন্তু বেসরকারি শিক্ষা ব্যবস্থাক তথা এমপিওভুক্ত শিক্ষা প্রতিষ্ঠান একযোগে জাতীয়করণ করলে সমগ্র জাতির উপর প্রভাব ফেলবে বৈকি। একথা সত্য যে,আমাদের শিক্ষার হার বেড়েছে, শিক্ষায় সহায়তা বাড়ানো হয়েছে (বৃত্তি, উপবৃত্তি, খাদ্য প্রদান ,বিনা মূল্যে পাঠ্যপুস্তক, অবৈতনিক শিক্ষা) শিক্ষক নিয়োগ প্রক্রিয়ায় স্বচ্ছতা এসেছে ও বার্ষিক বরাদ্দ বৃদ্ধি করা হয়েছে। ইতোমধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী জননেত্রী শেখ হাসিনার সাহসী পদক্ষেপে উল্লেখযোগ্য পরিমাণ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণ করা হলেও সিংহভাগ শিক্ষা প্রতিষ্ঠান এখনো জাতীয়করণের আওতার বাহিরে। তবে বেসরকারি শিক্ষা প্রতিষ্ঠান জাতীয়করণে বর্তমান সরকারের যে প্রচেষ্টা তা যদি অব্যাহত থাকে তাহলে সবার জন্য সুখকর হবে। চলমান মুজিববর্ষে ও আসন্ন বাজেটে এমপিওভুক্ত শিক্ষাপ্রতিষ্ঠান একযোগে জাতীয়করণ করা হবে। এটাই মোদের প্রত্যাশা।

শেয়ার করে সঙ্গে থাকুন, আপনার অশুভ মতামতের জন্য সম্পাদক দায়ী নয়। আপনার চারপাশে ঘটে যাওয়া নানা খবর, খবরের পিছনের খবর সরাসরি Alokito Sakal'কে জানাতে ই-মেইল করুন- dailyalokitosakal@gmail.com আপনার পাঠানো তথ্যের বস্তুনিষ্ঠতা যাচাই করে আমরা তা প্রকাশ করব।

Alokito Sakal'র প্রকাশিত/প্রচারিত কোনো সংবাদ, তথ্য, ছবি, আলোকচিত্র, রেখাচিত্র, ভিডিওচিত্র, অডিও কনটেন্ট কপিরাইট আইনে পূর্বানুমতি ছাড়া ব্যবহার করা যাবে না।

© ২০২২ সর্বস্বত্ব ® সংরক্ষিত। Alokito Sakal | এই ওয়েবসাইটের কোনো লেখা, ছবি, ভিডিও অনুমতি ছাড়া ব্যবহার বে-আইনি, Design and Developed by- DONET IT